উমরানকে তাড়াতাড়িই জাতীয় দলে আনা হয়েছে- কপিল দেব

0
39

স্পোর্টস ডেস্ক:: ছিলেন আইপিএলের নেট বোলার। সেখান থেকে বাইশ গজের মঞ্চে। পুরো ক্রিকেট বিশ্বকাপে কাঁপিয়ে দেন, গতির ঝড় তুলেন চার/ছক্কার আইপিএলে। ঘন্টায় দেড়শোর বেশি গতিতে বল করে সবার নজর কাড়েন কাশ্মীরের পেসার উমরান মালিক।

সানরাইজ হায়দ্রাবাদের নেট বোলার থেকে দলে ঢুকেন তিনি। সদ্য শেষ হওয়া আইপিএলে গতির ঝড় তুলে কাঁপুনি ধরান বিশ্বসেরা ব্যাটারদের ব্যাটে। ঘন্টায় ১৫৭র বেশি গতিতেও বল করেন তিনি। এই তরুণ পেসারকে জাতীয় দলে ডাকের দাবি উঠে সব মহল থেকে।

ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ড বিসিসিআই’র নির্বাচকেরা জাতীয় দলেও ডেকে নেন উমরানকে। দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে টি-২০ সিরিজে ভারতীয় স্কোয়াডে আছেন এই তারুণ। তবে এখনি তার জাতীয় দলে ঢুকার সময় হয়নি বলে মনে করেন ভারতের সাবেক ক্রিকেটার কপিল দেব।

তার মতে- আরো অন্তত বছর দুই উমরানকে পরিচর্যায় রাখা যেতো। আরো পরিণত হওয়ার পর জাতীয় দলে আনা যেতো। তাড়াতাড়িই তাকে জাতীয় দলে নিয়ে আসা হয়েছে বলে মনে করেন কপিল। তিনি বলেন, ‘উমরানের নির্বাচন নিয়ে আমি খুব খুশি। কিন্তুু এটা খুব তাড়াতাড়ি। এই স্তরের যে কোনো খেলোয়াড়ের জন্য আপনাকে তাকে অন্তত দুই-তিন বছর সময় দিতে হবে। তারপর আপনি এটি মূল্যায়ন করতে পারেন।’

কাশ্মীরের এই তরুণ পেসারের মেধার অভাব নেই উল্লেখ করে সাবেক ক্রিকেটার কপিল দেব বলেন, ‘আমরা শুরুতে একজন খেলোয়াড়ের অনেক প্রশংসা করি এবং এক বছর পরে সে অদৃশ্য হয়ে যায়। কিন্তুু উমরানের মেধার অভাব নেই। আমি চাই উমরান নিজেকে ভালো পরিবেশে রাখুক এবং তার কঠোর পরিশ্রম অব্যাহত রাখুক। তার সম্ভাবনা দেখে, আমি মনে করি না তার কোনো কিছুর অভাব আছে। তাকে শুধু ভালো বোলারদের সঙ্গে কথা বলতে হবে এবং তাদের বোলিংয়ের ভিডিও ফুটেজ দেখতে হবে।’

উমরানের ইকোনমিক রেট উন্নতি হবে জানিয়ে কপিল দেব বলেন, ‘আপনি যদি ১৫০ কিলোমিটারের বেমি গতিতে বল করেন, তাহলে ৯ এর ইকোনমিকরেট ভালো কথা নয়। এটি প্রতি ওভারে প্রায় ৬ বা ৭ রান হওয়া উচিত। উমরানকে এটা সংশোধন করতে হবে। এর জন্য তাকে ইয়র্কার বেশি ব্যবহার করতে হবে। একজন ব্যাটসম্যানের মনও পড়তে হবে। কিন্তুু এই সব কিছু সময়ের সাথে সাথে বোঝা যায়। উমরানের বোলিং অবশ্যই উন্নতি করবে কারণ সে ভালো ব্যাটসম্যানদের বিরুদ্ধে বোলিং করছে। আশা করি উমরানের ইকোনমি রেটের হারেও উন্নত হবে।’

আইপিএলে হায়দ্রাবাদের হয়ে ১৫৭ কিলোমিটার গতিতে বল করেন উমরান। যা আইপিএল ইতিহাসে সর্বোচ্চ গতির বল। ১৪ ম্যাচে ২২ উইকেট শিকার করেন তিনি। সেরা বোলিং ফিগার ২৫ রানে ৫ উইকেট। এমন দুর্দান্ত পারফর্মের পর জাতীয় দলে ডাক পান তিনি।

এসএনপিস্পোর্টসটোয়েন্টিফোরডটকম/নিপ্র/ডেস্ক/০০

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here