কাঁপালো আফগানিস্তান, নাসিম শাহ’র ঝলকে রোমাঞ্চকর জয় পাকিস্তানের

    0
    165

    স্পোর্টস ডেস্ক:: পাকিস্তানের কাছে আফগানিস্তান হেরেছে। তবে বাবর আজমদের কাঁপিয়ে দিয়েছে মোহাম্মদ নবীর দল। রোমাঞ্চকর ম্যাচে পাকিস্তান জিতেছে শেষ উইকেটে। ৪ বল হাতে রেখে আফগানদের দেওয়া লক্ষ্য ছুঁয়েছে পাকিস্তান।

    মাত্র ১২৯ রানের পূঁজি নিয়ে দারুণ লড়াই করেছে আফগানিস্তান। শেষের চার ওভারে ৬ উইকেট হারিয়ে রীতিমতো কাঁপছিলো পাকিস্তান। আফগান বোলাররা শেষ দিকে দারুণ ভাবে ম্যাচে ফিরেন। তবে শেষ পর্যন্ত আর পারেননি। নাসিম শাহর ঝলকে ৪ বল হাতে রেখেই জয় নিশ্চিত হয়ে যায় পাকিস্তানের।

    ১৬তম ওভারের তৃতীয় বল থেকে পাকিস্তান দলের ব্যাটিং লাইন ধ্বসিয়ে দিতে থাকে আফগানরা। ১৯তম ওভারের পঞ্চম বলে শেষ উইকেট হারায় পাকিস্তান। শেষ জুটি হিসেবে তখন ব্যাট করছিলেন নাসিম শাহ ও মোহাম্মদ হাসনাইন। পেসার নাসিম শাহ হাসনাইনকে কোনো বল মোকাবেলা করতে দেননি। ৪ বলে দুই ছয়ে ১৪ রান করে ম্যাচ শেষ করে দেন তিনি। আফগান বোলাররা আরো একটি উইকেট তুলতে পারলেই জয়ের আনন্দে মেতে উঠতেন।

    ১৬তম ওভারের তৃতীয় বলে ৩৩ বলে ৩০ রান করা ইফতিখারকে ফিরিয়ে দেন ফরিদ আহমদ। দলীয় ৮৭ রানে চতুর্থ উইকেট হারায় পাকিস্তান। পরের ওভারের দ্বিতীয় বলেই অর্থাৎ ১৭তম ওভারের দ্বিতীয় বলে পঞ্চম উইকেটে সাজঘরের পথ ধরেন আরেক সেট ব্যাটার শাদাব খান। দলীয় ৯৭ রানের মাথায় ব্যক্তিগত ২৬ বলে ৩৬ রানে সাজঘরে ফিরেন তিনি। এক চার ও তিন ছক্কায় সাজান নিজের ইনিংসটি।

    এরপর ১৮তম ওভারের প্রথম বলে মোহাম্মদ নেওয়াজ ফিরেন সাজঘরে। দলীয় ১০৫ রানে তার বিদায়ে ষষ্ট উইকেট হারায় বাবর আজমের দল। একই ওভারের শেষ বলে সপ্তম উইকেটে প্যাভেলিয়নে ফিরেন খুশদিল শাহ। ৩ বলে ১ রান করা এই ব্যাটারকে বোল্ড করে দেন আফগান বোলার ফজলে ফারুকী। পরের ওভারের দ্বিতীয় বলেই অর্থাৎ ১৯তম ওভারের দ্বিতীয় বলে হারিস রউফকে সাজঘরে পাঠান ফারুক আহমদ। দলীয় ১১০ রানে অষ্টম উইকেট হারিয়ে রীতিমতো হারের মুখে পাকিস্তান। দুই বলের আরেকটি ধাক্কা দেন ফারুক। ওভারের পঞ্চম বলে এবার ফিরিয়ে দেন আসিফ আলী। ৮ বলে ১৬ রান করে পাকিস্তানকে জয়ের স্বপ্ন দেখাচ্ছিলেন তিনি। শেষ উইকেটে বিপদের মুখে ব্যাট হাতে দাঁড়িয়ে যান নাসিম শাহ। ৪ বলে ১৪ রান করে জয় নিশ্চিত করেন তিনি।

    ১২৯ রানের লক্ষ্যে খেলতে নামা পাকিস্তান শুরুতেই হারিয়েছে ওপেনার বাবর আজমকে। দলীয় ১ রানের মাথায় প্রথম ওভারের দ্বিতীয় বলেই আফগান বোলার ফজলে হক ফারুকী এলবিডাব্লিউ’র ফাঁদে ফেলেছেন বাবর আজমকে। মাঝারি লক্ষ্যে খেলতে নামা পাকিস্তান তাই শুরু করে উইকেট হারিয়ে। চতুর্থ ওভারের প্রথম বলেই ফিরেন যান ফখর জামানও। ৯ বলে ৫ রান করেন তিনি। পাকিস্তান দলীয় ১৮ রানেই হারিয়ে ফেলে দ্বিতীয় উইকেট। নবম ওভারের চতুর্থ বলে তৃতীয় উইকেট হারায় পাকিস্তান। দলীয় ৪৫ রানের মাথায় ২৬ বলে ২০ রান করে সাজঘরে ফিরেন ওপেনার রিজওয়ান। চতুর্থ উইকেটে তখন জুটি গড়ে ইফতিখার ও শাদাব খান। ৪২ রানের জুটিতে দলকে টেনে নিয়ে যান তারা ১৬তম ওভার পর্যন্ত।

    আফগানিস্তানের হয়ে ফরিদ ও ফারুকী ৩টি করে এবং রশিদ খান ২টি উইকেট লাভ করেন।

    এর আগে টস হেরে ব্যাট করতে নামা আফগানিস্তান নির্ধারিত ওভারে ৬ উইকেটে ১২৯ রান তুলতে সমর্থ হয়। আফগানরা পাকিস্তানের নিয়ন্ত্রিত বোলিংয়ে ইনিংস বড় করতে পারেনি। নির্ধারিত ওভারে ৬ উইকেটে ১২৯ রানে থামতে হয়েছে তাদেরকে। ইব্রাহিম জর্দান ছাড়া ব্যাট হাতে সফল হতে পারেননি অন্য কোনো ব্যাটার। ইনিংসের চতুর্থ ওভারের পঞ্চম বলে ওপেনার রহমানুল্লাহ গুরবাজের বিদায়ে শুরু হয়ে আফগানদের ধীর গতির ব্যাটিং। উদ্বোধনী জুটিতে ৩৬ রান তুলে ব্যক্তিগত ১১ বলে ১৭ রানে গুরবাজ সাজ ঘরে ফিরেন।

    তিনে নামা ইব্রাহিম জর্দান ব্যাট হাতে কিছুটা লড়াই ছাড়ান। ইনিংস সর্বোচ্চ ৩৫ রান আসে তার ব্যাট থেকে। ৩৭ বলের ধীর গতির ইনিংসে তিনি দুটি চার ও একটি ছক্কা হাঁকান। দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ২১ রান করেন ওপেনার হজরতুল্লাহ জাজাই। ১৭ বলে চার চারে নিজের ইনিংসটি সাজান তিনি। করিম জান্নাত করেন ১৫ রান। এছাড়াও শেষ দিকে রশিদ খান ১৫ বলে ১৮ রানে অপরাজিত থাকেন। ১০ বলে ১০ রানে অপরাজিত থাকেন আজমতউল্লাহ ওমরজাই।

    পাকিস্তানের হয়ে হারিস রউফ ২টি, নাসিম শাহ, মোহাম্মদ হাসনাইন, মোহাম্মদ নেওয়াজ ও শাদাব খানরা ১টি করে উইকেট লাভ করেন।

    এসএনপিস্পোর্টসটোয়েন্টিফোরডটকম/নিপ্র/ডেস্ক/০০

    LEAVE A REPLY

    Please enter your comment!
    Please enter your name here