জীবন সবার আগে- সাকিব

স্পোর্টস ডেস্ক:: ইন্টারন্যাশনাল ক্রিকেট কাউন্সিল (আইসিসি) ক্রিকেট মাঠে ফেরাতে উদ্যোগ নিচ্ছে। এরই মধ্যে এ সংক্রান্ত নির্দেশনাও জারি করেছে আইসিসি। সংশ্লিষ্ট বোর্ডগুলোকে নির্দেশনা পাঠিয়েছে ক্রিকেটের নিয়ন্ত্রক সংস্থাটি।

করোনা পরিস্থিতির মধ্যে ক্রিকেট মাঠে ফেরাতে বেশ কিছু সিদ্ধান্ত নিয়েছে আইসিসি। মাঠে ক্রিকেটারদের সামাজিক দূরত্ব নিশ্চিত করতে হবে। আম্পায়ারদের গ্লাভস ব্যবহার করতে হবে। স্থানীয় আম্পায়ার ধারা ম্যাচ পরিচালনা করা হেব।

সফরের আগে দুই দলকে অন্তত করে ১৪ দিন কোয়ারেন্টিনে থাকতে হবে। ম্যাচের আগে ও পরে করোনা টেস্ট করাতে হবে। দর্শকরা গ্যালারিতে থাকতে পারবেন না। সামাজিক দূরত্ব নিশ্চিত করে চার ধাপে শুরু করতে হবে অনুশীলন। যাত্রা পথে চার্টাড বিমান ব্যবহার করতে হবে প্রতিটি দেশকে।

তবে আইসিসির কাছে আরো সুস্পষ্ট নির্দেশনা চেয়েছেন সাকিব আল হাসান। জানিয়েছেন, সবার আগে জীবন। করোনা ভাইরাস ১২ ফুট দূরত্বে থাকা ব্যক্তিকে আক্রমণ করে। এমন পরিস্থিতি মাঠে ক্রিকেটাররা সামাজিক দূরত্ব নিশ্চিত করতে পারবেন না। ক্লোজ ফিল্ডারদের সমস্যা হবে, উইকেটরক্ষকদের আরো পেছনে দাঁড়াতে হবে। দুই প্রান্তের ব্যাটসম্যানরা ওভারের মধ্য খানে কথা বলতে পারবেন না। দু’জনকে দুই পাশেই দাঁড়িয়ে থাকতে হবে।

দেশের একটি শীর্ষ দৈনিককে দেওয়া সাক্ষাৎকারে সাকিব আর হাসান এসব কথা বলেন। নিজের নিষেধাজ্ঞার সময় নিয়েও কথা বলেন তিনি। জানিয়েছেন দুই ভাবে দিন নিষেধাজ্ঞার দিনগুলো গুণছেন। সাকিব ওই গণমাধ্যমকে বলেন, ‘আমি আসলে দুইভাবে দিন গুনছি। প্রথমত, করোনা পরিস্থিতি কবে স্বাভাবিক হবে আর কবে আমার নিষেধাজ্ঞা শেষ হবে। আমি কঠিন সময়ের মধ্য দিয়ে যাচ্ছি। যদিও এখন কোথাও কোন ক্রিকেট হচ্ছে না। আমি জানি, যদি আগামীকাল ক্রিকেট শুরুও হয়, তাও আমি খেলতে পারব না। আপনাকে যখন কোনকিছু থেকে বিরত থাকতে বলা হয়, তখন অন্য কেউ এ ব্যাপারে কথা বলুক বা না বলুক, আপনার ভেতরে ঠিকই বিষয়টা চলতে থাকে। আপনি নিজেই বলতে পারেন আপনার ভেতরে আসলে কী চলছে।’

ক্রিকেট ফেরাতে আইসিসি নির্দেশনা প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘আমরা এখন শুনতে পাচ্ছি যে, করোনাভাইরাস ১২ ফুট দূরেও সংক্রমিত করতে পারে, তিন বা ছয় ফুট নয়। তার মানে দুজন ব্যাটসম্যান ওভার শেষে কথা বলতে পারবে না? তারা নিজেদের প্রান্তেই দাঁড়িয়ে থাকবে? মাঠে কোন দর্শক থাকবে না? উইকেটরক্ষকরা আরও দূরে গিয়ে দাঁড়াবে? ক্লোজ ইন ফিল্ডারদের ক্ষেত্রেই বা কী হবে?’

ঝুঁকি নেওয়া যাবে না, জীবন সবার আগে জানিয়ে সাকিব আল হাসান বলেন ‘আমার মনে হয় না, পুরোপুরি নিশ্চিত হওয়ার আগে আইসিসি কোন ঝুঁকি নেবে। বিষয়টা যাইহোক, জীবন সবার আগে। আমি নিশ্চিত আইসিসিও নিরাপত্তার কথাই আগে দেখবে।’

এসএনপিস্পোর্টসটোয়েন্টিফোরডটকম/নিপ্র/ডেস্ক/০০