তামিম ফিরিয়েছেন ৭৬ লাখের প্রস্তাব, সিপিএলে খেলবেন না রিয়াদ ও মুস্তাফিজ

    নিজস্ব প্রতিবেদক:: আগামি ১৮ আগস্ট থেকে শুরু হচ্ছে ক্যারিবিয়ান প্রিমিয়ার লিগ (সিপিএল)। ক্যারিবিয়ানদের এই লিগে এর আগে তামিম ইকবাল খেলেছেন সেন্ট জুকসের হয়ে। এবারো একটি ফ্র্যাঞ্চাইজির পক্ষ থেকে ৯৬ হাজারে ডলারের প্রস্তাব ছিলো। তবে বাংলাদেশের ওয়ানডে অধিনায়ক সেই প্রস্তাব ফিরিয়ে দিয়েছেন।

    তামিমের পাশাপাশি সিপিএলে খেলার প্রস্তাব ফিরিয়ে দিয়েছেন বাংলাদেশের টি-২০ অধিনায়ক মাহমুদ উল্লাহ রিয়াদ ও পেসার মুস্তাফিজুর রহমান। রিয়াদ এর আগে জ্যামাইকা তালাওয়াসের হয়ে সিপিএল খেলে ছিলেন। তবে মুস্তাফিজুর রহমানের সামনে প্রথমবার খেলার সুযোগ ছিলো।

    করোনা পরিস্থিতির কারণেই বাংলাদেশের এই তিন ক্রিকেটার সিপিএলে না খেলার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। মাহমুদ উল্লাহ রিয়াদ সিপিএল খেলার জন্য পরিবার থেকে সম্মতি পাননি। তাই তিনিও ক্লাবের প্রস্তাব ফিরিয়ে দিয়েছেন। মুস্তাফিজও এমন পরিস্থিতিতে দেশের বাইরে যেতে চাচ্ছেন না।

    তবে তিন ক্রিকেটারের মধ্যে কেউই ফ্র্যাঞ্চাইজির নাম প্রকাশ করতে রাজিন হননি। যেহেত প্রস্তাব ফিরিয়ে দিচ্ছেন, তাই ফ্র্যাঞ্চাইজির নাম প্রকাশ করছেন না। তামিম ছাড়া অন্য কারো পারিশ্রমিকের বিষয়েও জানা যায়নি। সিপিএলের প্রস্তাব ফিরিয়ে দেওয়ার ক্ষেত্রে করোনাভাইরাসের পাশাপাশি দেশটিতে ভ্রমণে দীর্ঘ সময় বিষয়টি বিবেচনায় নিয়েছেন ক্রিকেটাররা।

    চলমান পরিস্থিতিতে দেশের বাইরে যাওয়া উচিত হবে না, মনে করেন তামিম ইকবাল। যার কারণে বাংলাদেশী মুদ্রায় প্রায় ৭৬ লাখ টাকার ওই প্রস্তাবকে তিনি ফিরিয়ে দেন। সিপিএলের একটি ফ্র্যাঞ্চাইজি এবারের আসরে খেলার জন্য তাঁকে এই লোভনীয় অফার দিয়ে ছিলো।

    খেলতে যাবেন না, তাই কোন ফ্র্যাঞ্চাইজি প্রস্তাব দিয়ে ছিলো, সেটি প্রকাশ করছেন তামিম। তবে বেশ ভেবে-চিন্তেই তিনি এমন সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। বুধবার সংশ্লিষ্ট ক্লাবকেও জানিয়ে দিয়েছেন তিনি খেলবেন না। করোনাভাইরাস এবং বিশ্বে বিমান পরিবহন স্বাভাবিক না হওয়ার কারণেই এমন সিদ্ধান্ত জানিয়েছেন ড্যাশিং ওপেনার। দেশের শীর্ষ একটি নিউজ পোর্টালকে তামিম বলেন, ‘প্রস্তাবটি বেশ আকর্ষণীয় ছিল। গত তিন চারদিন যাবত কথা চলছিল। তবে অনেক কিছু ভাবনায় রাখতে হয়েছে আমাকে। আজ ‘না’ করে দিয়েছি।’

    করোনা পরিস্থিতিতে না যাওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন জানিয়ে তিনি সাংবাদিকদের আরো বলেন, ‘এমনিতে আমাদের দেশে এখন করোনা পরিস্থিতি ভালো নয়। বাইরে খেলতে যাওয়ার পর আমার পরিবারের কেউ আক্রান্ত হলে দ্রুত ফিরে আসা কঠিন। কেননা সারা বিশ্বের বিমান যোগাযোগ এখনও স্বাভাবিক হয়নি। এছাড়া ঈদের পর ঢাকা প্রিমিয়ার লিগ শুরু হতে পারে। সব মিলিয়েই না যাওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছি।’

    এসএনপিস্পোর্টসটোয়েন্টিফোরডটকম/নিপ্র/ডেস্ক/০০