তামিম-শান্তের দুর্দান্ত ব্যাটিংয়ে হেসেখেলে জিতল তামিম একাদশ

ফাইল ছবি।

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ আগের ম্যাচে ব্যাট হাতে দলকে সামনে থেকে নেতৃত্ব দিয়ে জিতিয়েছিলেন মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ। বসে থাকেন কি করে আরেক অধিনায়ক তামিম ইকবাল। তাঁর কাঁধেই আবার ওয়ানডে দলের দায়িত্ব। বিভিন্ন কারণে সমালোচনায় থাকা তামিম তাই খানিক সময়ের জন্য এবার চুপ করিয়ে দিলেন।

নিজেদের মধ্যকার দ্বিতীয় প্রস্তুতি ম্যাচে দলকে এবার নেতৃত্ব দিয়ে জিতিয়েছেন বাংলাদেশের ড্যাশিং ওপেনার। রান পেয়েছেন নাজমুল হোসেন শান্ত এবং লিটন দাসও। টপ অর্ডার ব্যাটসম্যানের দারুণ ব্যাটিং নৈপুণ্যে মাহমুদউল্লাহ একাদশকে ৮ উইকেটের বিশাল ব্যবধানে হারিয়েছে তামিম একাদশ।

৪৫ ওভারের ম্যাচটিতে ২২৪ রানের লক্ষ্যে ব্যাট করতে নেমে শুরুটা দুর্দান্ত করে তামিম একাদশ। লিটন দাসের সাথে ৭৭ রানের উদ্বোধনী জুটি গড়েন অধিনায়ক তামিম। মাত্র দুই রানের জন্য ফিফটি মিস করা লিটন ৫৩ বলে ৯ চারের মারে ৪৮ রান করে ফিরলে ভাঙে এই জুটি।

এরপর নাজমুল হাসান শান্ত’র সাথে ১১৯ রানের জুটি গড়ে দলের জয় নিশ্চিত করেন তামিম। ৭ চার ও ২ ছক্কায় ৫১ বলে ৬১ রানের ঝড়ো ইনিংস খেলে শান্ত ফিরলে ভাঙে সেই জুটি। তবে দ্রুত গতিতে রান তুলে সেঞ্চুরির পথে ভালোভাবেই ছিলেন তামিম। কিন্তু, দলের বাকি ব্যাটসম্যানদের সুযোগ করে দিতে রিটায়ার্ড হার্ট হয়ে মাঠ ছেড়ে যান। তবে এর আগে ৮০ বলে ৫ চার ও ৩ ছক্কায় ৮০ রানের ম্যাচ সেরা ইনিংস খেলে যান তিনি।

এরপর মোহাম্মদ মিঠুনের ১৭ বলে ১৭ এবং সৌম্য সরকারের ১২ বলে ১২ রানের অপরাজিত ইনিংসে ৫৮ বল হাতে রেখেই জয়ের বন্দরে পৌঁছে যায় তামিম একাদশ। মাহমুদউল্লাহ একাদশের হয়ে তাসকিন আহমেদ ও হাসান মাহমুদ ২টি করে উইকেট লাভ করেন।

এর আগে ব্যাট করতে নেমে বেশ বড় সংগ্রহ পেয়েছিল মাহমুদউল্লাহর দল। নির্ধারিত ৪৫ ওভারে দলটির স্কোর দাঁড়ায় ৭ উইকেটে ২২৩। রানের দেখা পেয়েছেন সাকিব আল হাসান। দীর্ঘদিন পরে হাঁকিয়েছেন ফিফটি। এছাড়াও রান পেয়েছেন ওপেনার নাইম শেখ।

দলের ইনিংস সূচনা করতে গিয়ে নাইম শেখ এদিনও ব্যক্তিগতভাবে ভালো ইনিংস খেলেছেন। আগের দিন ফিফটি মিস করলেও, এদিন আর সেটি হয়নি। ৬৮ বলে ৪ ছয় ও ২ চারে ৫০ রানের দারুণ এক ইনিংস খেলে ফিরেছেন প্যাভিলিয়নে। আরেক ওপেনার ইয়াসির আলি চৌধুরি রাব্বি করেছেন ৩৬ বলে ২৪ রান।

টপ অর্ডারে ব্যাট করতে নামা সাকিব এদিন দেখে-শুনে ব্যাটিং করেছেন। প্রথম ম্যাচে দূর্ভাগ্যজনকভাবে রান আউটে কাটা পড়লেও, আজ বেশ সাবধানী ছিলেন তিনি। ফিফটি হাঁকিয়েছেন ঠিকই তবে তুলনামূলক কিছুটা বেশি বল খেলেছেন। নাসুমের বলে আউট হওয়ার আগে ৮২ বলে ১ ছয় ও ১ চারের মারে খেলেছেন ৫২ রানের ইনিংস। দ্বিতীয় উইকেটে নাইম ও সাকিবের ৫০ রানের জুটি দলের ভিত গড়তে সাহায্য করে।

এছাড়া মোসাদ্দেক হোসেন সৈকতের ৩১ ও মুশফিকুর রহিমের ২৫ রানের ইনিংসে ভর করতে ভালো সংগ্রহ পায় মাহমুদউল্লাহ একাদশ। তামিম একাদশের হয়ে বল হাতে মেহেদী হাসান ৩১ রানে ২ উইকেট ও মোহাম্মদ সাইফউদ্দিন ৬২ রানে ২ উইকেট শিকার করেন। এছাড়া মুস্তাফিজ, রুবেল ও নাসুম ১টি করে উইকেট লাভ করেন।

এসএনপিস্পোর্টসটোয়েন্টিফোরডটকম/নিপ্র/সা