তিন পেনাল্টির ম্যাচে মেসির মাইলফলক, বার্সার হোঁচট

স্পোর্টস ডেস্কঃ শত চাপ মাথায় রেখে মাঠে নেমেছিল বার্সেলোনা। শক্তিশালী অ্যাথলেটিকো মাদ্রিদের বিপক্ষে সেই চাপের ভার নিতে পারেনি কাতালান জায়ান্টরা। আর এতেই আরও একবার পয়েন্ট খুইয়ে শিরোপা রেস থেকে অনেকটাই পিছিয়ে গেল বার্সা। অ্যাথলেটিকোর বিপক্ষে হোঁচট খাওয়ার ম্যাচে তিন পেনাল্টি হয়েছে। এই ম্যাচের মধ্য দিয়ে ৭০০ গোলের মাইলফলক স্পর্শ করেছেন লিওনেল মেসি। ম্যাচ শেষ হয়েছে ২-২ সমতায়।

মঙ্গলবার ন্যু ক্যাম্পে ম্যাচের শুরু থেকেই নাটক জমে উঠে। ১০ মিনিটেই এগিয়ে যায় স্বাগতিকরা। মেসির ফ্রি-কিক থেকে নেওয়া শট কর্নারের বিনিময়ে ঠেকান কস্তা। সেই কর্নার থেকেই মেসি আবার শট নেন। এবার আর রক্ষা নয়, নিজেদের জালেই বল ঢুকিয়ে দেন ডিয়াগো কস্তা।

১৫তম মিনিটে বার্সার ডি বক্সের ডিয়াগো কস্তা ফাউলের শিকার হলে পেনাল্টি পায় অ্যাথলেটিকো। সেখানে গোল করতে ব্যর্থ হন কস্তা। তবে শট নেওয়ার আগেই বার্সা গোলরক্ষক স্টেগান এগিয়ে এসে বল রিসিভ করেন। রেফারি এর জন্য স্টেগানকে হলুদ কার্ড দেখান এবং আরও একবার পেনাল্টির নির্দেশ দেন। এর প্রতিবাদ করতে গিয়ে হলুদ কার্ড দেখেন পিকে। এবার পেনাল্টি নেননি কস্তা। সাউল নিগুয়েজ শট নিয়ে লক্ষ্যভেদ করতে ভুল করেননি, বল পাঠিয়ে দিয়েছেন সোজা জালে।

টান টান উত্তেজনায় ১-১ সমতায় শেষ হয় প্রথমার্ধ। দ্বিতীয়ার্ধের মিনিট পাঁচেকের মাথায় পেনাল্টি পায় বার্সা। নেলসন সেমেদো ফাউলের শিকার হলে, রেফারি এই পেনাল্টির বাঁশি বাজান। সেখান থেকে গোল করতে ভুল করেননি মেসি। আর এতেই ৭০০ গোলের মাইলফলক স্পর্শ করেন এই আর্জেন্টাইন সুপারস্টার। চলতি মৌসুমে এটি তাঁর ২২তম গোল।

বার্সাকে ২-১ গোলে এগিয়ে যেতে দেখে তর সয়নি অ্যাথলেটিকোর। সুযোগও পেয়ে যায় সিমিওনে শিষ্যরা। ৬২তম মিনিটে সেই ম্যাচে দ্বিতীয় বারের মতো পেনাল্টি পায় দলটি। সেখান থেকে দ্বিতীয় বারের মতো স্কোরশিটে নাম লেখান সাউল নিগুয়েজ। এরপর দুই দলই সুযোগ পেলেও, সেটি আর কাজে লাগাতে পারেনি। নির্ধারিত সময়ে ২-২ গোলে শেষ হয় খেলা।

এই ম্যাচের পর লা লিগায় ৩৩ ম্যাচে ৭০ পয়েন্ট নিয়ে দুই নম্বরে অবস্থান করছে বার্সেলোনা। সমান ম্যাচে ৫৯ পয়েন্ট নিয়ে তিন নম্বরে আছে অ্যাটলেটিকো মাদ্রিদ। অপরদিকে এক ম্যাচ কম খেলে ৭১ পয়েন্ট নিয়ে শিরোপা দৌড়ে শীর্ষে রয়েছে রিয়াল মাদ্রিদ।

এসএনপিস্পোর্টসটোয়েন্টিফোরডটকম/নিপ্র/ডেস্ক/সা