দর্শক ছাড়া খেলা, কনে ছাড়া বিয়ের মতো!

স্পোর্টস ডেস্ক:: করোনাভাইরাসের কারণে বন্ধ থাকা খেলাধুলা মাঠে ফিরতে শুরু করেছে। বুন্দেসলিগা শুরু হয়েছে। ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগ, লা লিগার মতো আসারগুলোও শুরুর প্রস্তুুতি নেওয়া হয়েছে। ক্রিকেট ফেরাতে উদ্যোগ নিচ্ছে অস্ট্রেলিয়া এবং আইসিসি। ঘরোয়া টুর্ণামেন্ট শুরুর সিদ্ধান্ত নিয়েছে অস্ট্রেলিয়া বোর্ড। আইসিসও নিয়ম বদলে ক্রিকেট শুরু করতে যাচ্ছে।

তবে সব খেলাধুলায় একটা শর্ত পালনকরা বাধ্যতামূলক। দর্শক ছাড়া খেলতে হবে খেলোয়াড়দের। বুন্দেসলিগার ম্যাচ হয়েছে দর্শকহীন স্টেডিয়ামে। করোনার কারণে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট বন্ধ হওয়ার আগে সবশেষ ম্যাচে মুখোমুখি হয়ে ছিলো অস্ট্রেলিয়া-নিউজিল্যান্ড। ম্যাচটিও হয়ে ছিলো দর্শকহীন স্টেডিয়ামে।

আবারো দর্শক ছাড়া ক্রিকেট শুরুর যখন চিন্তা ভাবনা করা হচ্ছে, তখন অনেকেই এর বিপক্ষে মত দিচ্ছেন। পাকিসন্তানের সাবেক পেস তারকা শোয়েব আখতার মনে করেন, দর্শক ছাড়া খেলা কনে ছাড়া বিয়ের মতোই। তবে অনেকেই এর পক্ষেও। কারণ দর্শকরা টিভিতে বসে খেলা দেখে নিতে পারবেন। করোনাকে জয় করে অন্তত মাঠেতো ফিরবে ক্রিকেট।

বিশ্ব গণমাধ্যম জানাচ্ছে, আগামী জুলাইয়ে ইংল্যান্ড ও ওয়েস্ট ইন্ডিজের মধ্যকার সিরিজ দিয়ে ফের মাঠে গড়াবে খেলা। পাশাপাশি শ্রীলঙ্কা ক্রিকেট বোর্ড জানিয়েছে, বাংলাদেশ ও ভারতের বিপক্ষে জুলাইয়ের সিরিজও তারা আয়োজনে প্রস্তুুত। কিন্তুু ম্যাচগুলো হতে হবে দর্শক চবাড়াই।

দর্শকহীন স্টেডিয়ামে খেলা নিয়ে রসিকতা করে শোয়েব আখতার এক ভিডিওতে বলেন, ‘দর্শকশূন্য স্টেডিয়ামে খেলা হয়তো ক্রিকেট বোর্ডগুলোর কাছে ভালো মনে হতে পারে। তবে আমরা এটিকে সমর্থন দিতে পারি না। খালি স্টেডিয়ামে খেলা কনে ছাড়া বিয়ের মতো। আমাদের খেলার জন্য দর্শক লাগবেই। আমি আশা করি এক বছরের মধ্যেই এ করোনা পরিস্থিতি স্বাভাবিক হয়ে যাবে।’

পাকিস্তানের সাবেক এই ক্রিকেটার বলেন, ‘শচিন যখন ৯৮ রানে আউট হয়ে গেল, আমি খুব কষ্ট পেয়েছিলাম। সে ইনিংসটা স্পেশাল ছিল। তার সেঞ্চুরি পাওয়া উচিৎ ছিল। আমি চাচ্ছিলাম সে সেঞ্চুরি করুক। যে বাউন্সার তাকে করেছিলাম, সেটায় ছক্কা হাঁকালেও মন খারাপ হতো না।’

এসএনপিস্পোর্টসটোয়েন্টিফোরডটকম/নিপ্র/ডেস্ক/০০