দেশের ক্রিকেট থেকে খসে পড়া এক ‘তারা’

নিজস্ব প্রতিবেদক:: তখন দেশের ক্রীড়াঙ্গনে জনপ্রিয়তার উচ্চ আসনে ফুটবল। চারিদিকে ফুটবল আর ফুটবল। চায়ের কাপে ঝড় উঠতো আবাহনী-মোহামেডানের ফুটবল দ্বৈরথ নিয়ে। ধীরে ধীরে মানুষের ক্রিকেটের প্রতিও আগ্রহ বাড়ছিলো। তার কারনটাও স্পষ্ট বাংলাদেশ ধীরে ধীরে উন্নতির দিকেই এগুচ্ছিলো। অনেকে সম্ভাবনা দেখতে পান। বাংলার ক্রিকেটে সেইসময় ছিলেন আমিনুল ইসলাম বুলবুলরা।

তাদের আমলেই শক্তিশালী শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে মাত্র ১৭ বছর বয়সে টেস্ট অভিষেকেই সেঞ্চুরি করে তাক লাগিয়ে দেন এক প্রতিভাবান ক্রিকেটার। মুরালিধরনের মতো ক্রিকেটারকে বেকায়দায় ফেলতে সক্ষম হন। রুপকথার ফিনিক্স পাখির মতো তার আগমন বাংলার ক্রিকেটীয় রাজ্যে।

জিম্বাবুয়ে দিয়ে শুরু শ্রীলঙ্কা দিয়ে রাঙানো। ”এই যে শুরু আর থামতে হয়নি” কথাটা বললে ভুল হবে। থামতে হয়েছে তবে তার আগে অনেক কিছু দিয়েছেন দেশকে, রাঙিয়েছেন নিজের ক্যারিয়ারকে। ‘দেশের ক্রিকেটের প্রথম নক্ষত্র’ তকমা গায়ে জড়িয়েছেন। দেশের ক্রিকেটকে নিয়ে গেছেন অনন্য এক উচ্চতায়। চলন্ত গাড়িতে তোলে দিয়েছিলেন সেই আজও থামেনি বাংলাদেশ, তবে তিনি থেমে গিয়েছেন। দেশের ক্রিকেটের আকাশে তারা হয়ে এসেছিলেন, খসেও পড়েছেন নিজের ভুলে।

একটি ভুলই থাকে থামিয়ে দিয়েছে। আর সেই ভুলের মাশুল গুনতে হচ্ছে আজও। আর হয়তো কখনো ফিরতে পারবেন কিনা কারোই জানা নেই। আদৌও ফিরবেন? ফিরতে দেয়া হবে? নাকি অতীতের ভুল উঁকি দিয়ে ডেকে আবার অতীতে টেনে নিয়ে যাবে? প্রশ্নগুলোর উত্তর সময়ই ভালো দিতে পারবে।

অজেয় অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে বাংলাদেশের জয় আজ থেকে ১৫ বছর আগে! ভাবাটাও কষ্টকর ছিলো। কিন্তু সেই নক্ষত্রের স্বীয় বাহুবলে জয়ের পালে হাওয়া দিয়েছিলো। নিসন্দেহে তিনিই অজেয় অজি বধের নায়ক। মহানায়ক। আজ বাংলাদেশ অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে জিততে পারবে সন্দেহ নেই। জিততে না পারলেও বুক চিতিয়ে লড়াই করতে পারবে।

কারণ বাংলাদেশ জিততে জানে, বাংলাদেশ তাদের সাথে জিতেছে এই আত্মবিশ্বাস নিয়ে দূরন্ত গতিতে ছুটে যাবে জয়ের বন্দরে। এই আত্মবিশ্বাস তৈরি তিনিই করে দিয়েছিলেন আজ থেকে ঠিক ১৫ বছর আগে। উত্তাল উন্মাদনায় ভাসিয়েছিলেন গ্যালারী প্রাঙ্গন। আর কবে ভাসাবেন সেটা জানা নেই কারো। টাইগার ক্রিকেটের প্রথম এই ব্রান্ডের আজ ৩৭ তম জন্মদিন।

পথ ভুলে হারিয়ে যাওয়া এই নক্ষত্র পথ খুঁজে নিয়েছেন। তবে পথের পথিকরা তাকে স্বাগত জানাতে দ্বিধাগ্রস্ত। সবকিছুকে ছাপিয়ে তিনি ফিরবেন। স্বরুপে ফিরবেন। তার ব্যাট আবারও হাসবে, সাথে পুরো বাংলাদেশ হাসবে। আমাদের সবার প্রত্যাশা এমনটাই। তিনিই আমাদের মশালবাহক ছিলেন, ভুল শুধরে আবারো ফিরবেন। তিনি আর কেউ নন মোহাম্মদ আশরাফুল।

এসএনপিস্পোর্টসটোয়েন্টিফোরডটকম/নিপ্র/০০