দেশের তরুণ ক্রিকেটারদের উপর কোপ মারলো বিসিবি!

তানজীল শাহরিয়ার অলী, অতিথি লেখক:: মাস তিনেক পরে শুরু হচ্ছে বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগ (বিপিএল) এর ৫ম আসর। শুরু থেotete-lekokকেই নানান বিতর্কের জন্ম দেয়া বিপিএল প্রতি আসরে ‘বিতর্কিত’ কোনো কিছুর কারণে সংবাদ মাধ্যমে সমালোচিত হবে, এটা যেনো নিয়ম হয়ে দাঁড়িয়েছে।

এবার বিপিএল শুরু হবার আগেই বিতর্কের ঝড় উঠেছে। বিতর্কের বিষয় একাদশে পাঁচ জন বিদেশি খেলার সিদ্ধান্ত দিয়েছে বিপিএল গভর্নিং কমিটি। এটা কি বিদেশিদের প্রিমিয়ার লিগ (বিপিএল) হতে চলেছে?

বিপিএল ঘরোয়া ক্রিকেটের একটি অংশ। ফ্র্যাঞ্চাইজি ভিত্তিক এই টি-২০ ক্রিকেট লিগের দিকে দেশের তরুণ প্রতিভাদের বিশেষ আগ্রহ থাকে। কারণ, এখানে পারফর্ম করলে সহজে নজরে আসা যায়, নিজের oli-viসামর্থ্যকে তুলে ধরা যায়। সেই আশায় পানি ঢেলে দেবার মতোই সিদ্ধান্ত নিলো বিপিএল গভর্নিং কমিটি। বিদেশি ক্রিকেটারের সংখ্যা চার জন থেকে বাড়িয়ে পাঁচ জনে উন্নীত করায় কোপটা পড়বে দেশের তরুণ ক্রিকেটারদের ওপরেই।

বিশ্বের সবচেয়ে বিশাল আয়োজনের ফ্রাঞ্চাইজি লিগ হচ্ছে আইপিএল। বিগ ব্যাশ, পিএসএল, সিপিএল ইত্যাদি লিগগুলোও বেশ জমজমাট হয়। কিন্তু, কেউই নিজেদের ঘরোয়া লিগে পাঁচ জন বিদেশি একাদশে রাখার মতো হঠকারী সিদ্ধান্ত নেয়নি। কারণ, এসব লিগের প্রধান লক্ষ্যই হচ্ছে ঘরোয়া ক্রিকেটের পারফর্মারদের সুযোগ করে দেয়া। নিজের দেশের ক্রিকেটকে বিশ্বের সামনে আরো জাঁকজমক করে তুলে ধরা। স্পন্সরশিপ, দর্শক উপস্থিতি ইত্যাদি দেশের ক্রিকেটারদের সংখ্যা যত বেশি হয় তত বৃদ্ধি পাবার সম্ভাবনা।

আইপিএল এর আদলে কিছুদিন আগে শুরু হয়েছে তামিল নাড়ু প্রিমিয়ার লিগ (টিএনপিএল)। এসব লিগ আয়োজনের উদ্দেশ্যই হচ্ছে নিজেদের ঘর থেকেই যাতে বেশি বেশি ক্রিকেটার উঠে আসে। এতে লিগের আকর্ষণ যেমন বাড়ে, বাড়ে স্পন্সরের সংখ্যাও। অন্যদিকে বিদেশি নির্ভরতা কমে, হ্রাস পায় খরচের অঙ্কটাও।

গতবারের চেয়ে এবার একটা ফ্রাঞ্চাইজি বৃদ্ধি পেয়েছে, দেশি ক্রিকেটারদের সুযোগ পাওয়ার সম্ভাবনাও বৃদ্ধি পেয়েছিলো। পাঁচ জন বিদেশি খেলানোর সিদ্ধান্ত দেশি ক্রিকেটারদের জন্যে উলটো বিপদ হয়েই হাজির হলো।

মান বাড়ানো বা জৌলুস বৃদ্ধির জন্যে অধিক বিদেশি খেলানোর সিদ্ধান্তকে সময়োপযোগী বলে বিবেচনা করবার আগে চিন্তা করতে হবে, দেশের সবচেয়ে প্রতিদ্বন্দিতাপূর্ণ ঢাকা প্রিমিয়ার ডিভিশন লিগে শুরু থেকেই মূলত দেশের ক্রিকেটাররা খেলে আসছেন। একজন দু’জন বিদেশি খেলানো ঢাকা লিগের মান নিয়ে সন্দেহের অবকাশ নেই।

ঢাকা লিগ থেকে দেশের অনেক প্রতিভাবান ক্রিকেটার উঠে আসছেন দীর্ঘকাল থেকে। যদি বিদেশিদের দিয়েই ক্রিকেট কে উন্নতির শিখরে পৌঁছানো যেতো তাহলে ঢাকা লিগ প্রতিবছর এতো প্রতিদ্বন্দিতাপূর্ন হতো না। ক্রিকেটারদের মধ্যে এতো লড়াই হতো না।

বিশ্বের অন্যসব ফ্রাঞ্চাইজি লিগ এখন দলে বিদেশিদের সংখ্যা কমানোর দিকে নজর দিচ্ছে। সবাই এটা অনুধাবন করছে ঘরোয়া লিগে ঘরের ক্রিকেটারদের প্রাধান্য দিলে সুফল বেশি। ক্রিকেট যেমন এগিয়ে যাবে, বাণিজ্যিক দিক দিয়েও বেশি লাভের সম্ভাবনা আছে।

বিপিএল গভর্নিং কমিটি এসব নিয়ে কিছুটা ভাবলেই হয়। নাহলে হয়ত বিপিএল হয়ে উঠবে বিদেশিদের প্রিমিয়ার লিগ। ঘরোয়া লিগে ঘরের ক্রিকেটাররাই রয়ে যাবেন প্রদীপের আড়ালে।

(এসএনপিস্পোর্টস২৪ডটকম সব সময়ই লেখকের প্রতি আন্তরিক ও শ্রদ্ধাশীল। প্রকাশিত লেখাটি লেখকের একান্তই নিজস্ব। লেখকের মতামতের সঙ্গে আমাদের সম্পাদকীয় নীতির মিল নাও থাকতে পারে।)

এসএনপিস্পোর্টসটোয়েন্টিফোরডটকম/নিপ্র/অলে/০০