নতুন যে পাঁচ নিয়মে আজ মাঠে গড়াচ্ছে ইংল্যান্ড-উইন্ডিজ সিরিজ

স্পোর্টস ডেস্কঃ ঠিক ১১৭ দিন পর আজ ৮ জুলাই বুধবার মাঠে ফিরছে কোনো স্বীকৃত কিংবা আন্তর্জাতিক ক্রিকেট। মাসের হিসেবে, যেটি সাড়ে তিন মাসেরও বেশি। সর্বশেষ ১৩ মার্চ আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে মুখোমুখি হয়েছিল নিউজিল্যান্ড ও অস্ট্রেলিয়া। ক্রিকেটে এতো দীর্ঘ বিরতি ছিল আর কেবল দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময়।

করোনা ভাইরাসের মহামারী এবার এতো দীর্ঘ দিন বন্ধ থাকলো ক্রিকেট। তবে হতাশার দিনগুলো কাটিয়ে সুদিন ফিরেছে। সাউদাম্পটনের অ্যাজেস বোলে আজ বিকাল সাড়ে ৩টায় ইংল্যান্ডের ৮১তম টেস্ট অধিনায়ক বেন স্টোকস ও উইন্ডিজ অধিনায়ক জেসন হোল্ডারের মধ্যকার টসের মাধ্যমে শুরু হবে ক্রিকেটের নতুন পথচলা।

করোনা ভাইরাসের কারণে পরিস্থিতি অনেকটায় বদলে যাবে। তাই নতুন পরিস্থিতির সঙ্গে মানিয়ে নিতে নতুন নিয়ম করেছে ইন্ট্যারন্যাশনাল ক্রিকেট কাউন্সিল (আইসিসি)। ইংল্যান্ড-উইন্ডিজ সিরিজ দিয়ে যা কার্যকর হবে। ক্রিকেটের নতুন পাঁচ নিয়ম একবার চোখ বুলিয়ে নেওয়া যাক।

বলে লালা/থুথু ব্যবহার করা যাবে না
করোনাভাইরাস পরিস্থিতি ঠিক না হওয়া পর্যন্ত খেলোয়াড়রা ম্যাচের সময় লালা/থুথুর মাধ্যমে বল শাইনিং করতে পারবেন না। অভ্যাসবশত যদি কে ব্যবহার করে ফেলেন তাহলে আম্পায়াররা সমাধান করবেন। তবে সেটি বারবার করা যাবে না। প্রত্যেক ইনিংসে দুইবার করে সতর্কতা দেয়া হবে একটি। এরপরও যদি কেউ লালা ব্যবহার করে তাহলে, ব্যাটিং দল পাঁচ রানের পেনাল্টি রান। লালা ব্যবহার করা বলটি পুনরায় জীবানুমুক্ত করে খেলানো হবে। তবে লালার পরিবর্তে গাম ব্যবহার করতে পারবেন ক্রিকেটাররা।

করোনা সাবস্টিউট
সর্বশেষ অ্যাশেজ সিরিজ থেকে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে শুরু হয়েছে কনকাশন সাবস্টিটিউট। অর্থাৎ টেস্ট ম্যাচে কোন খেলোয়াড় মাথায় আঘাত পেলে তার পরিবর্তে নামানো হয় অন্য আরেকজন একই ধরনের খেলোয়াড়। এরকম নিয়মের সাথে মিল রেখে এবার তৈরি হলো করোনা সাবস্টিটিউট। ম্যাচ চলাকালীন সময়ে খেলোয়াড়ের মধ্যে কেউ কোনোভাবে অসুস্থবোধ করলে ম্যাচ রেফারির অনুমতি নিয়ে আরেক খেলোয়াড়কে মাঠে নামানো যাবে। তবে ওয়ানডে কিংবা টি-টোয়েন্টিতে এটি প্রযোজ্য হবে না।

স্থানীয় আম্পায়ার দিয়ে খেলা পরিচালনা করা
আইসিসির নিয়ম অনুযায়ী টেস্টে দুইজনই নিরপেক্ষ, ওয়ানডেতে একজন নিরপেক্ষ থাকতে হবে। টি-টোয়েন্টিতে এই নিয়মের প্রয়োজন নেই। তবে সেই নিয়মে পরিবর্তন এনেছে আইসিসি। করোনাকালীন সময়ে যেকোন দেশ চাইলে স্থানীয় আম্পায়ার দিয়ে ম্যাচ পরিচালনা করতে পারবে। সেক্ষেত্রে আইসিসি তাদের আম্পায়ার ও ম্যাচ রেফারিদের প্যানেল থেকে আম্পায়ার ও রেফারি ঠিক করে দেবে। ইংল্যান্ড-উইন্ডিজ সিরিজে ম্যাচ পরিচালনায় থাকা পাঁচজনই ইংল্যান্ডের।

জার্সিতে অতিরিক্ত লোগো ব্যবহার
আগামি এক বছরের জন্য জার্সিতে অতিরিক্ত লোগো ব্যবহারের অনুমতি দিয়েছে আইসিসি। তবে সেটি কোনোভাবেই ৩২ স্কয়ার ইঞ্চির বেশি হতে পারবে না। একই সাথে খেলোয়াড়দের বুকের মধ্যেই থাকতে হবে। এতদিন ধরে সীমিত ওভারের ক্রিকেটে ব্যবহৃত হতো, টেস্টে এর অনুমতি ছিল না।

বাড়তি রিভিউ সিস্টেম
করোনাকালীন এই সময়ে স্থানীয় আম্পায়ারদের দিয়ে ম্যাচ পরিচালনায় ভুলের সংখ্যা বাড়তে পারে বলে আশঙ্কা করেছে বিশেষজ্ঞ কমিটি। সেই জন্য সব দলের জন্য বাড়তি একটি রিভিউ সুযোগ দেবে আইসিসি। এখন থেকে টেস্টে তিন, ওয়ানডে এবং টি-টোয়েন্টিতে নেয়া যাবে দুটি করে রিভিউ।

এই পাঁচ নিয়মের বাইরেও আরও কয়েকটি নিয়ম তৈরি হয়েছে। যাদের অন্যতম হলো একসাথে মাঠের মধ্যে জড়ো হওয়া যাবে না যেকোনো পরিস্থিতিতেই। হ্যান্ডশেকের প্রচলনও বাদ দিতে হবে। এছাড়া নিয়মিত বল জীবানুমুক্ত করাসহ অন্যান্য নিয়ম বেঁধে দেওয়া হচ্ছে।

এসএনপিস্পোর্টসটোয়েন্টিফোরডটকম/নিপ্র/ডেস্ক/সা