নাইম-সাকিবের ব্যাটে রান, ১৫৩ রানে অলআউট বাংলাদেশ

স্পোর্টস ডেস্কঃ শুরুর দৈন্যতা কাটিয়ে চ্যালেঞ্জিং সংগ্রহ পেয়েছে বাংলাদেশ দল। ওমানের বিপক্ষে ম্যাচে টাইগারদের সংগ্রহ ১৫৩ রান। বিপরীতে অলআউট হতে হয়েছে দলকে। নিজের প্রথম বিশ্বকাপ ম্যাচেই ফিফটি হাঁকিয়েছেন নাইম শেখ। দলের রানে রেখেছেন বড় অবদান। দুই বার জীবন পেয়ে খেলেছেন ৬৪ রানের ইনিংস। এছাড়া ঝড়ো ইনিংস খেলেছেন সাকিব আল হাসান। শেষ দিকে ছোট একটি ক্যামিও ইনিংস খেলেছেন অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ।

ওমানের মাসকাটে অবস্থিত আল আমেরাত স্টেডিয়ামে টস জিতে ব্যাট করার সিদ্ধান্ত নেন টাইগার অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহ। তবে রিয়াদের সিদ্ধান্তের স্বার্থকতা রাখতে পারেননি ব্যাটাররা। পাওয়ার প্লে’র ছয় ওভারে বাংলাদেশ নিতে পারে মাত্র ২৯ রান। বিপরীতে দল হারায় লিটন দাস ও টপ অর্ডারে নামা মেহেদী হাসানকে।

২.৫ ওভারের মাথায় বিলাল খানের বলে এলবিডব্লিউর শিকার হয়ে প্যাভিলিয়নে ফেরেন লিটন। জীবন পেয়েও ফের একবার ব্যর্থ হয়েছেন এই ডানহাতি ওপেনার। ৭ বল খেলে করেছেন মাত্র ৬ রান। এরপর উইকেটে আসা মেহেদী হাসান ফিরেছেন ৪ বলে ‘ডাক’ মেরে। নিজের বলে নিজে দারুণ এক ক্যাচ নিয়ে মেহেদীকে ফেরান একাদশে সু্যোগ পাওয়া ফয়েজ বাট।

বাংলাদেশ দল ধুঁকতে থাকে উইকেটে। দলের প্রথম বাউন্ডারি আসে চতুর্থ ওভারের তৃতীয় বলে। উইকেটে থেকেও ধীর গতির ব্যাটিং করে যান এক ম্যাচ পর একাদশে সুযোগ পাওয়া নাইম শেখ। তৃতীয় উইকেটে সাকিব আল হাসান এসে নাইম শেখের সাথে জুটি বাঁধেন। প্রথম ধীর গতির শুরু পেলেও, পরবর্তীতে হাত খুলে খেলতে থাকেন দু’জন।

তাদের ৮০ রানের জুটি বাংলাদেশকে স্বস্তি এনে দেয়। ২৯ বলে ৬ বাউন্ডারিতে ৪২ রানের ক্যামিও খেলে রান আউটের শিকার হয়ে সাকিব ফিরলে ভাঙে সেই জুটি। এরপর ব্যাটিং অর্ডার পাল্টে উইকেটে এসে একে ফিরে যান নুরুল হাসান সোহান (৩) ও আফিফ হোসেন ধ্রুবরা (১)। ফিরে যান এক প্রান্ত আগলে রাখা নাইম শেখও। তবে এর আগে খেলে যান ৫০ বলে ৩ বাউন্ডারি ও ৪ ছক্কায় ৬৪ রানের ইনিংস। ১২৮.০০ স্ট্রাইক রেটে ব্যাট করা নাইমের ক্যারিয়ারের তৃতীয় ফিফটি এটি। আর বিশ্বকাপ অভিষেকেই প্রথম ফিফটি।

আট নম্বরে নামা মুশফিকুর রহিম ৬ রানের বেশি করতে পারেননি। সাইফউদ্দিন বোলার পাতা ফাঁদে উড়িয়ে মারতে গিয়ে ‘গোল্ডেন ডাক’ মেরে আউট হন। ১০ বলে ১ বাউন্ডারি ও ১ ছক্কায় ১৭ রান করে প্যাভিলিয়নে ফেরেন মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ। শেষ পর্যন্ত নির্ধারিত ২০ ওভারে ১৫৩ রানে গুঁটিয়ে যায় বাংলাদেশ দলের ইনিংস। তাসকিন আহমেদ ১ রানে অপরাজিত থাকেন। তবে ২ রান করে আউট হন মোস্তাফিজুর রহমান।

ওমানের হয়ে বিলাল খান ৪ ওভারে মাত্র ১৮ রান খরচ করে ৩ উইকেট শিকার করেন। ৩০ রানে ৩ উইকেট লাভ করেন ফয়েজ বাট। সমান রান খরচ করে ২টি উইকেট নেন কলিমুল্লাহ।

এসএনপিস্পোর্টসটোয়েন্টিফোরডটকম/নিপ্র/ডেস্ক/সা