নেপালে ব্যর্থ বাংলাদেশ, কোচের ব্যাখ্যায় সন্তুষ্ট নন বাফুফে সভাপতি

ফাইল ছবি।

স্পোর্টস ডেস্কঃ শিরোপার কাছে গিয়েও হাতছাড়া হয়েছে সেটি। নেপালে ত্রিদেশীয় টুর্নামেন্টের ফাইনালের লড়াইয়ে কেন জিততে পারেনি বাংলাদেশ দল, সেই প্রশ্নের বড় একটি কারণ কোচ জেমি ডে’র একাদশ গঠন। অনেক অভিজ্ঞ এবং পরীক্ষিত ফুটবলারকে ছাড়াই একাদশ সাজিয়েছিলেন জেমি।

ফাইনাল শেষে আবার গণমাধ্যমকে জানিয়েছিলেন শিরোপা নয়, নতুন খেলোয়াড়দেরকে বড় মঞ্চে যাচাই করে নেওয়াটাই নাকি মূল লক্ষ্য ছিল। এমন সব কাণ্ডে সমালোচোনার মুখে পড়েছিলেন জেমি। সমালোচনার মুখে ছিল বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশনের (বাফুফে) দায়িত্বশীলতাও।

তবে বাফুফে সভাপতি কাজী সালাউদ্দিনও হয়েছিলেন ক্ষুব্ধ। তড়িঘড়ি করেই ব্যাখা চেয়েছিলেন প্রধান কোচ জেমি ও সহকারী কোচ স্টুয়ার্ট ওয়াটকিসের কাছে। সেই ব্যাখ্যা দিয়েছেন দু’জনই। এরপরই গণমাধ্যমের মুখোমুখি হয়ে বাফুফে বস জানিয়েছেন কোচের ব্যাখ্যায় সন্তুষ্ট হতে পারেননি তিনি। তবে কোচের কথায় যুক্তিও যে আছে সেটা মানছেন দেশের সাবেক কিংবদন্তি ফুটবলার। এদিকে শুধুমাত্র কোচের সাথেই নয়, ফুটবলারদের সাথেও বৈঠকে বসতে চান বলে জানিয়েছেন সালাউদ্দিন। তবে সেক্ষেত্রে লকডাউন বাঁধা হয়ে দাঁড়িয়েছে।

গণমাধ্যমকে সালাউদ্দিন বলেন, ‘কোচ বলেছে যে, সে তার সেরা একাদশই নামিয়ে ছিল ফাইনালে। আমরা কিছু বিষয়ে অবশ্য ভিন্নমত প্রকাশ করেছি। কারণ একেকজনের ব্যাখ্যা একেক রকম হয়। সব সময় মিলবে না। মাঝে মধ্যে এক হতে পারে। কোচ তার নিজের মতো করে ব্যাখ্যা দিয়েছেন। তবে আমি শতভাগ সন্তুষ্ট নই। ওর কথায় যে যুক্তি নেই সেটাও নয়।’

ফুটবলারদের সাথে বৈঠক নিয়ে সালাউদ্দিনের ভাষ্য, ‘আমি চেয়েছিলাম কোচের সাথে যেভাবে বসে আলোচনা করেছি, একইভাবে খেলোয়াড়দের সাথে বসেই বিস্তারিত আলোচনা করব। কিন্তু ফেডারেশনে আসার পর শুনলাম লকডাউন হতে পারে। যদি লকডাউন না থাকে তাহলে দলের সিনিয়র সাত-আট জনকে নিয়ে বসে আজকের মতোই আলেচনা করব।’

এসএনপিস্পোর্টসটোয়েন্টিফোরডটকম/নিপ্র/ডেস্ক/সা