ফয়সলের চলে যাওয়া, কিছুই জানেন না মাহি উদ্দিন সেলিম

নিজস্ব প্রতিবেদক: বিশিষ্ট ক্রীড়া সংগঠক মাহি উদ্দিন আহমদ সেলিম। সিলেট জেলা ক্রীড়া সংস্থার সাধারণ সম্পাদক, জেলা ফুটবল এসোসিয়েশনের সভাপতি মাহি উদ্দিন সেলিম বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশনের কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী পরিষদের নির্বাচিত সদস্য।

তিনিই একমাত্র ব্যক্তি, যিনি বৃহত্তর সিলেট থেকে ক্রীড়াঙ্গণের ইতিহাসে প্রথম বারের মত বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশনের নির্বাচনী করে ছিলেন। নির্বাচনী হাড্ডাহাড্ডি লড়াইয়ে তিনি নির্বাচিত হয়ে ফেডারেশন প্রতিনিধিত্ব করছেন বৃহত্তর সিলেটের।

অথচ তিনিই জানেন না, সাফ চ্যাম্পিয়ন গোলরক্ষক বৃহত্তর সিলেটের সুনামগঞ্জের ফয়সল আহমদ ফুটবল ছেড়ে পুলিশে চাকরি নিয়েছে জীবন-জীবিকার তাগিদে। সিলেট থেকে বাফুফেতে প্রতিনিধিত্ব করা এই ফুটবল কর্মকর্তাই যেখানেন জানেন না ফয়সলের চলে যাওয়া, যা নিয়ে চলছে তোলপাড়, সেখানে স্পস্ট ফুটে উঠলো খেলোয়াড়দের প্রতি কতটা আন্তরিক এ দেশের ফুটবল কর্তারা।

যদিও পুলিশ বাহিনীর ফুটবল টিমে তার খেলার একটা সুযোগ রয়েছে। কিন্তুু ফয়সল সেখানে খেলতে যাননি, গেছেন জীবিকার তাগিদেই।

গত ১৩ নভেম্বর সর্ব প্রথম অভিমানি ফয়সলের ফুটবল ছেড়ে চাকরি নিয়ে চলে যাওয়ার বিষয়ে প্রতিবেদন করে এসএনপিস্পোর্টস। এরপর শুরু হয় তোলপাড়। অন্যান্য গণমাধ্যম টিভি চ্যানেলে আসে খবরটি।

এই সিলেটের মাঠেই গত বছর সাফ অনুর্ধ্ব-১৬ চ্যাম্পিয়নশিপের আয়োজন করেন মাহি উদ্দিন আহমদ সেলিম। সফল ভাবে টুর্ণামেন্ট আয়োজন করে, হাজার হাজার দর্শককে মাঠে এনে তাক লাগিয়ে দিয়ে ছিলেন তিনি।

সেই সঙ্গে ফয়সলদের অবদানে বাংলাদেশ দল চ্যাম্পিয়ন হয়ে গেলে তাদের উচ্ছাসের কমতি ছিলো না। সাফজয়ের পর নানা স্বপ্ন দেখিয়ে ছিলেন ফুটবল কর্তারা। অথচ এরপর যে ফয়সলদের কোন খবর নেননি ফুটবল কর্তারা সেটি বুধবার এসএনপিস্পোর্টসের কাছে স্বীকার করে নিয়েছেন মাহি উদ্দিন আহমদ সেলিম।

মাহি উদ্দিন সেলিম বুধবার দুপুর সাড়ে ৩টায় কথা বলেন এসএনপিস্পোর্টসের সঙ্গে। তিনি জানান, ফয়সল ফুটবল ছেড়ে চাকরি নিয়ে চলে গেছে আমি এর কিছুই জানি না।

এই প্রথম শুনলাম জানিয়ে তিনি বলেন, ফয়সল আমাকে জানালে বা সুনামগঞ্জের কেউ আমাকে জানালে আমি ব্যক্তিগত ভাবে সহযোগিতা করতাম। এমন অনেক ফুটবলারকে আমি সহযোগিতা করছি। কিন্তুু সুনামগঞ্জের কেউ আমাকে জানায়নি বিষয়টি। সাফ জয়ের পর ফয়সলদের কোন খোঁজখবর নিয়ে ছিলেন কিনা জানতে চাইলে তিনি বলেন, না আমি কোন খোঁজ নেইনি।

বিষয়টি তাঁর দেখার দায়িত্ব নয় জানিয়ে এই ফুটবল কর্মকর্তা বলেন, বাফুফের দেখার বিষয় এটি। ফয়সলদের খোঁজখবর রাখার কথা বাফুফের। কিন্তুু তারপরও আমাকে কেউ জানালে আমিই এগিয়ে যেতাম। ফয়সলকে এভাবে যেতে দিতাম না।

এসএনপিস্পোর্টসটোয়েন্টিফোরডটকম/নিপ্র/০০