বাফুফে প্রস্তুত রাখল সিলেটকে, সিদ্ধান্ত জানায়নি ফিফা-এএফসি

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ বাংলাদেশ জাতীয় ফুটবল দলের নতুন হোম ভেন্যু সিলেট জেলা স্টেডিয়াম। বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামে আপাতত আন্তর্জাতিক ম্যাচ আয়োজন করার সুযোগ নেই। যার সুবাদে আধুনিক সুযোগ-সুবিধা সম্পন্ন সিলেট জেলা স্টেডিয়ামই এখন জাতীয় দলের হোম গ্রাউন্ড। এই মাঠেই কাতার বিশ্বকাপ ও এশিয়ান কাপ যৌথ বাছাইপর্বের হোম ম্যাচগুলো খেলবে বাংলাদেশ দল। এজন্য স্টেডিয়ামটিতে আন্তর্জাতিক মানের সকল সুযোগ-সুবিধা নিশ্চিত করার কাজ ইতোমধ্যে সম্পন্ন হয়েছে। স্টেডিয়ামে বসানো হয়েছে চেয়ার। যেখানে বসে দর্শকরা ভালোভাবে খেলা উপভোগ করতে পারবেন। ফিফার নির্দেশনা অনুযায়ী গ্যালারিতে চেয়ার স্থাপন করায় স্টেডিয়ামের নান্দনিকতা বেড়ে গেছে অনেকগুণ। বেড়েছে ড্রেসিং রুমের সংখ্যা। এই স্টেডিয়ামে নবনির্মিত পাঁচ তলা বিশিষ্ট ভিআইপি ভবনে দুটি ড্রেসিং রুমের অবকাঠামো রয়েছে।

সিলেট জেলা স্টেডিয়ামের পিচ তুলে ফেলা নিয়ে আলোচনা-সমালোচনা চলছে। মূলত ফুটবল বিশ্বকাপের বাছাই পর্বের ম্যাচ গুলোর জন্য সিলেটের এই ভেন্যুকে প্রস্তুুত করতেই পিচ তুলে ফেলা হয়েছে। বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশন সিলেট জেলা ফুটবল এসোসিয়েশন মাঠ প্রস্তুুত রাখার নির্দেশনা দিয়েছে ইতিমধ্যে। সেই মোতাবেক জেলা ক্রীড়া সংস্থা ও জেলা ফুটবল এসোসিয়েশনের কর্মকর্তারা মাঠ প্রস্তুুত করছেন। যার কারণে টি-২০ টুর্ণামেন্টের ফাইনাল শেষে পরদিন সকালেই তুলে ফেলতে হয়েছে পিচ।

সুচী অনুযায়ী চলতি মাসেই সিলেট জেলা স্টেডিয়ামে আয়োজন হবে আন্তর্জাতিক ম্যাচ। আগামী ২৫ মার্চ বাংলাদেশ খেলবে আফগানিস্তানের বিপক্ষে। ৭ জুন বাংলাদেশের প্রতিপক্ষ ভারত। বাংলাদেশ শেষ ম্যাচটি খেলবে ১৫ জুন, ওমানের বিপক্ষে। সব কটি ম্যাচই হবে সিলেট স্টেডিয়ামে। তবে বাছাইয়ের ফিরতি ম্যাচ খেলতে বাংলাদেশে আসবে না বলে এএফসিকে জানিয়ে দিয়েছে আফগানিস্তান। অর্থাৎ ২৫ মার্চ বাংলাদেশ ও আফগানিস্তানের ম্যাচটি সিলেটে হবে কি না তা এখনো নিশ্চিত নয়। বাফুফে এই ম্যাচ আয়োজনের জন্য তাকিয়ে আছে ফিফা-এএফসির সিদ্ধান্তের উপর। যা এখনো জানায় নি ফুটবলের দুই নিয়ন্ত্রক সংস্থা।

জানতে চাইলে বাফুফের মিডিয়া কর্মকর্তা খালিদ মাহমুদ নওমি এসএনপিস্পোর্টসকে বলেন, ‘আমরা ম্যাচ আয়োজনে প্রস্তুত। নির্ধারিত সময়েই ম্যাচ করা হবে সিলেট জেলা স্টেডিয়ামে। আমরা ঘরের মাঠের সুবিধা নিয়ে খেলতে চাই।’ সোমবার এসএনপিস্পোর্টসকে নওমি আরো জানান, ‘আফগানিস্তান আসতে না চাইলে আমাদের কিছু করার নেই। ওরা ওদের সুবিধায় খেলতে চায়। কিন্তু পূর্ব নির্ধারিত সূচি অনুযায়ী ম্যাচটি আমাদের মাঠেই হওয়ার কথা। বাফুফেও সিদ্ধান্ত জানিয়ে দিয়েছে। ঘরের মাঠে দর্শকদের সামনে বাংলাদেশ দল খেলতে চায়। ফিফা বা এএফসি এ ব্যাপারে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত জানাবে দু’এক দিনের মধ্যে।’

সিলেটের এই মাঠে শুধু বিশ্বকাপ ও এশিয়ান কাপ যৌথ বাছাইপর্বের ম্যাচ আয়োজন নয়, প্রিমিয়ার লিগ চ্যাম্পিয়ন বসুন্ধরা কিংসও তাদের হোম ভেন্যু করতে চেয়েছিল এএফসি কাপের জন্য। এজন্য ক্লাবটি ইতোমধ্যে বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশনের (বাফুফে) কাছে আগ্রহ প্রকাশ করে, যেটি এএফসির কাছে আবেদন করে রাখে বাফুফে। তবে শেষ মূহুর্তে এসে সিলেট স্টেডিয়ামকে হোম ভেন্যু হিসেবে পাচ্ছে না বসুন্ধরা কিংস। কারণ সোমবার এএফসি এক বিবৃতিতে জানিয়েছে এএফসি কাপের গ্রুপপর্বের ম্যাচগুলোর আয়োজক হবে মালদ্বীপে। আগামী ১৪ থেকে ২০ মে অনুষ্ঠিত হবে এএফসি কাপের গ্রুপপর্বের ম্যাচ।

এসএনপিস্পোর্টসটোয়েন্টিফোরডটকম/নিপ্র/১১০