বিরাট কোহলিদের বিরুদ্ধে কোনো অভিযোগ করেননি আম্পায়াররা

স্পোর্টস ডেস্ক:: মাঠে অনেকটা শাস্তিযোগ্য অপরাধই করেছিলেন বিরাট কোহলিরা। রিভিউ সিদ্ধান্তে অসন্তুুষ্ট হয়ে বাজে মন্তব্য করেন ভারতের অধিনায়ক বিরাট কোহলি, সহ-অধিনায়ক লুকেশ রাহুলসহ অন্যরা। স্বাভাবিক ভাবে মাঠে আম্পায়ারদের সিদ্ধান্তের বিরোধী করলে, তর্কে জড়ালে শাস্তি পেতে হয় ক্রিকেটারদের।

কিন্তুু দক্ষিণ আফ্রিকার দুই আম্পায়ার মারাইস এরাসমাস ও আদ্রিয়ান হোল্ডস্টোক ম্যাচ শেষে কোনো অভিযোগই আনেনি বিরাট কোহলি ও তার দলের ক্রিকেটারদের বিরুদ্ধে। তাই শাস্তিতো হয়নি, আনুষ্ঠানিক শুনানীতেও যেতে হলো না বিরাট কোহলিকে। ম্যাচ শেষে ম্যাচ রেফারি অ্যান্ডি পাইক্রফট কেবল পরামর্শ দিয়েছেন ভবিষ্যতে যেনো এমনটা না করেন কোহলি।

সিরিজ নির্ধারণী কেপটাউন টেস্ট জিতেছে সাউথ আফ্রিকা। ম্যাচটিতে সাউথ আফ্রিকার ইনিংসের ২১তম ওভারে রবিচন্দ্রন অশ্বিনের বলে এলবিডাব্লিউ’র শিকার হন ডেন এলগার। আম্পায়ারও আঙ্গুল তুলে জানিয়ে দেন এলগার আউট। কিন্তুু প্রোটিয়া ব্যাটার রিভিউ নিয়ে বেঁচে যান। রিভিউতে বল ট্র্যাকিংয়ের সময় দেখা যায়, অশ্বিনের ওই ডেলিভারি স্ট্যাম্পের ওপর দিয়ে যাচ্ছে। ফলে টিভি আম্পায়ার এলগারকে নটআউট ঘোষণা করেন। এসময় মাঠের আম্পায়ার মাথা নাড়িয়ে আম্পায়ার ইরাসমাসও যেনো বলছিলেন এটা অসম্ভব!

টিভি আম্পায়ারের এই সিদ্ধান্তে ক্ষুব্ধ হন বিরাট কোহলি। তার কাছে মনে হয়েছে এলগার এলবিডাব্লিউ হয়েছেন নিশ্চিত। হক আই নামের ডিআরএস পরিচালনাকারী প্রতিষ্ঠানটি হয়তো ভুল করছে। এসময় ক্ষুব্ধ কোহলি বলেন, ‘নিজেদের দল যখন বল চকচকে বানায়, তখন তাদের ওপর মনোযোগ দাও, প্রতিপক্ষের ওপর নয়। সবসময় লোকজনকে ধরার চেষ্টা চলছেই।’

কোহলির সঙ্গী হয়ে এসময় সহ-অধিনায়ক লুকেশ রাহুল বলেন, ‘এগারো জন মানুষের বিরুদ্ধে পুরো দেশ লেগে গেছে!’ বোলার রবিচন্দ্রন অশ্বিন বলেন, ‘জেতার জন্য আরো ভালো একটা উপায় খুঁজে বের করা উচিত ছিল, সুপারস্পোর্ট!’ স্ট্যাম্প মাইক্রোফোনে স্পষ্ট তাদের এমন মনোভাবের চিত্র ধরা পড়ে। তবে মাঠের দুই আম্পায়ার অভিযোগ না করায় বিরাট কোহলি ও তার দলকে শাস্তি পেতে হচ্ছে না।

এসএনপিস্পোর্টসটোয়েন্টিফোরডটকম/নিপ্র/ডেস্ক/০০