বিসিবিতে এখনো সিলেট বিভাগীয় স্টেডিয়াম!

নিজস্ব প্রতিবেদক:: সিলেটের লাক্কাতুরা চা বাগানে একখন্ড ভূমি সমতল করেই গড়ে তোলা হয় সিলেট বিভাগীয় স্টেডিয়ামে। সিলেটের স্থানীয় খেলাধুলার পাশাপাশি ২০১২/১৩ সালে বাংলাদেশ ও ইংল্যান্ড ‘এ’ দল, বাংলাদেশ ও শ্রীলঙ্কা অনূর্ধ্ব-১৯ দলের খেলা হয়েছে তৎকালীন বিভাcaptureগীয় স্টেডিয়ামে।

আইসিসি টি-বিশ্বকাপ ক্রিকেট ২০১৪’র একক আয়োজক হয় বাংলাদেশ। বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি)কে তাই বেশ কয়েকটি আন্তর্জাতিক ভেন্যু তৈরি করতে হয়। জাতীয় ক্রীড়া পরিষদের অর্থাৎয়নে সেই সিলেট বিভাগীয় স্টেডিয়াম বিশ্বকাপের উপলক্ষ্যে তাই রূপ নেয় সিলেট আন্তর্জাতিক ক্রিকেট স্টেডিয়ামে।

২০১৪ সালে বিশ্বকাপ আয়োজন করা হয় সিলেটের ভেন্যুতে। তার আগেই এটির উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। টি-২০ বিশ্বকাপের ম্যাচ দিয়ে আইসিসি থেকে আন্তর্জাতিক ভেন্যুর স্বীকৃতি পায় তখনকার বিভাগীয় স্টেডিয়ামটি। তার আগেই প্রধানমন্ত্রীর উদ্বোধনের সময় সিলেট বিভাগীয় স্টেডিয়াম নামের পরিবর্তে দেওয়া নতুন নাম সিলেট আন্তর্জাতিক ক্রিকেট স্টেডিয়াম।

২০১৪ সালের ১৭ মার্চ টেস্ট খেলুড়ে দেশ জিম্বাবুয়ে ও আইসিসির তখনকার সহযোগী সদস্য দেশ আয়ারল্যান্ডের ম্যাচে দিয়ে বিশ্ব ক্রিকেটে নাম লেখায় সিলেট আন্তর্জাতিক ক্রিকেট স্টেডিয়াম। এরপর থেকেই সেটি এই নামেই পরিচয় পেয়েছে বিশ্ব ব্যাপী।

সারা বিশ্বে সিলেট আন্তর্জাতিক ক্রিকেট স্টেডিয়াম নামে পরিচিত পেলেও বিসিবিতে এখনো রয়েই গেছে সিলেট বিভাগীয় ক্রিকেট স্টেডিয়াম। বিসিবির অফিসিয়াল ওয়েব সাইট http://www.tigercricket.com.bd এর ম্যাচের লাইভ স্কোরে সিলেট বিভাগীয় স্টেডিয়াম লিখা হচ্ছে।

চলমান বাংলাদেশ ও আফগানিস্তান অনূর্ধ্ব-১৯ দলের লাইভ স্কোর আপডেটেও সিলেট আন্তর্জাতিক ক্রিকেট স্টেডিয়ামের পরিবর্তে সিলেট বিভাগীয় স্টেডিয়াম লিখা হচ্ছে। বিসিবির অফিসিয়াল সাইটটিতে আন্তর্জাতিক ভেন্যু লিখা হচ্ছে না।

বিষয়টি নিয়ে জানতে এসএনপিস্পোর্টস থেকে যোগাযোগ করা হয় বিসিবির মিডিয়া শাখায়। বোর্ডের মিডিয়া কর্মকর্তা রাবিদ ইমাম বলেন, স্কোর আপডেট বিভাগ পৃথক। সেখান থেকেই এটা লিখা হচ্ছে। এরকম হয়ে থাকলে তা সংশোধন করা হবে।

এসএনপিস্পোর্টসটোয়েন্টিফোরডটকম/নিপ্র/০০