‘ভিএআর’ প্রযুক্তির ছোঁয়ায় ধ্বস নামল উদযাপনে

স্পোর্টস ডেস্ক: এশিয়ান কাপ ফুটবল কোয়ার্টার ফাইনালের প্রথম ম্যাচ আরব আমিরাতে। এই ম্যাচে মুখোমুখি হয়েছে ভিয়েতনাম এবং জাপান। বিশ্বকাপ খেলা জাপানের বিপক্ষে ভিয়েতনাম এই ম্যাচে খুব বড় কোন দল নয়। কিন্তু চোখে চোখ রেখে প্রথমার্ধে লড়েছে দলটি। কিন্তু গোলের দেখা প্রথম পায় জাপান।

ম্যাচের বয়স তখন মাত্র ২৪ মিনিট। কর্ণার থেকে উড়ে আসা বলে হেড করে গোল করেন জাপানের অধিনায়ক মায়া ইয়োসহিদা। গোল করে উদযাপনে ভাসতে থাকে জাপান। ডাগ-আউট থেকে ছুঁটে আসেন কোচ ও খেলোয়াড়রা। এমন উদযাপনের মূর্হতেই কিনা রিভিউ চেয়ে বসে ভিয়েতনাম তাদের দাবি ইয়োসহিদা হেড করার পর বল তার হাত স্পর্শ করে অর্থ্যাৎ হ্যান্ডবলের দাবি জানায় প্রতিপক্ষ দল।

তাদের দাবির প্রেক্ষিতে এশিয়ান কাপের ইতিহাসে প্রথমবার ব্যবহার করা হয় ভিএআর। এবারের টুর্ণামেন্ট শুরুর আগে ঘোষণা করা হয় কোয়ার্টার ফাইনাল থেকে এই প্রযুক্তি ব্যবহার করা হবে। কিন্তু প্রথম ম্যাচে এতো দ্রুত এই প্রযুক্তি ব্যবহার করা হবে এমনটা হয়তো ভাবেনি দু’দল কিংবা রেফারিও।

বিশ্বকাপে ভিএআর প্রযুক্তির ব্যবহার জাপান পেয়ে থাকলেও ভিয়েতনামের জন্য ছিল এই প্রথমবার। আর তাতেই বাজিমাত করেছে দলটি। রিভিউয়ের আবেদনের প্রেক্ষিতে জাপানের গোল বাতিল করেন রেফারি। তাতে উজ্জীবিত হয়ে জাপান শিবিরে প্রথমার্ধে একের পর এক আক্রমণ করতে থাকে ভিয়েতনাম। যদিও প্রথমার্ধ শেষ হয় গোলশূন্য ড্র’তে।

এশিয়ান কাপ ফুটবলে প্রথমবার ভিএআর প্রযুক্তি ব্যবহার করার পর উদযাপনে ধ্বস নামে জাপানের। স্কোর লাইন ১-০ দেখানোর পরও সমতায় ফিরেছে ভিয়েতনাম আর হতাশ হয়েছে জাপান।

এসএনপিস্পোর্টসটোয়েন্টিফোরডটকম/নিপ্র/ডেস্ক/১০৪