মিরপুরের স্পিন স্বর্গে তাইজুল-মিরাজের ঘূর্ণি জাদুতে দিশেহারা নিউজিল্যান্ড

0
24

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ মিরপুরে চিরচেনা স্পিন যুদ্ধেই শেষ হলো বাংলাদেশ ও নিউজিল্যান্ডের দ্বিতীয় টেস্টের প্রথম দিন। তবে এই স্পিন স্বর্গে দিনটা নিজেদেরই করে নিয়েছে স্বাগতিকরা। তাইজুল-মিরাজের ঘূর্ণি জাদুতে দিশেহারা কিউইরা। বাংলাদেশের ১৭২ রানের জবাবে নিজেদের প্রথম ইনিংসে ৫ উইকেটে মাত্র ৫৫ রান নিয়ে দিন শেষ করেছে নিউজিল্যান্ড। বাংলাদেশের চেয়ে ১১৭ রানে পিছিয়ে আছে অতিথিরা।

ম্যাচের প্রথম দিনেই মোট ২২৭ রানের বিপরীতে ১৫ উইকেট নেই। যার মধ্যে ১৩টি উইকেটই তুলে নিয়েছেন স্পিনাররা। পেসারদের দখলে মাত্র এক উইকেট। আরেকটি উইকেট এসেছে বিরল আউট অবস্ট্রাকটিং দ্য ফিল্ড থেকে। তবে দিন শেষে ঘরের মাঠে ফায়দাটা ভালোভাবেই তুলে নিচ্ছে বাংলাদেশ।

বাংলাদেশের করা ১৭২ রানের জবাবে খেলতে নেমে হোম অব ক্রিকেটে প্রথম ইনিংসে নিউজিল্যান্ড শুরুটা আগ্রাসী করতে চাইলেও, সেটা স্থায়ীত্ব পায়নি বেশি সময়। দ্রুতই নিয়মিত বিরতিতে উইকেট হারিয়ে বিপর্যয়ে পড়ে অতিথি দল।

ইনিংসের ষষ্ঠ ওভারে কনওয়েকে দারুণ এক ডেলিভারিতে বোকা মানিয়ে বোল্ডআউট করেন মিরাজ, এনে দেন প্রথম উইকেট। ১৪ বলে ১টি করে চার ও ছয়ের মারে ১১ রান করে প্যাভিলিয়নের পথ ধরেন কনওয়ে। লাথামের সাথে ভাঙে ২০ রানের উদ্বোধনী জুটি।

পরের ওভারেই নিউজিল্যান্ডের শিবিরে আঘাত হানেন তাইজুল। তার নিচু সারির ডেলিভারিতে লাথামের ব্যাটের একেবারে নিচের অংশে আলতো ছোঁয়ার পর উইকেটরক্ষক নুরুল হাসান সোহান দারুণ এক ক্যাচ নেন। ২০ বল খেলে ৪ রান করেই আউট হন লাথাম। ঘরের মাঠে এটি তাইজুলের দেড়শতম টেস্ট উইকেট।

এরপর তাইজুল আরও একটি উইকেট শিকার করেন। নবম ওভারের পঞ্চম বলে তার শিকারে পরিণত হন এবার হেনরি নিকোলস। সদ্য ক্রিজে আসা এই ব্যাটার ডাউন দ্য উইকেটে খেলতে গিয়ে মিড অনে শরিফুলের দারুণ ক্যাচে পরিণত হয়ে ড্রেসিং রুমের পথ ধরেন মাত্র ১ রান করেই।

দশম ওভারে ফিরতে পারতেন অধিনায়ক কেন উইলিয়ামসন। তবে মিরাজের বলে স্লিপে ক্যাচ মিস করেন বাংলাদেশ অধিনায়ক নাজমুল হোসেন শান্ত। তবে সেটিকে আক্ষেপ বানানোর সুযোগ দেননি মিরাজই। নিজের করা পরের ওভারে এসেই দলীয় ৪৬ রানের মাথায় শাহদাত দিপুর ক্যাচে পরিণত করে উইলিয়ামসনকে ফেরান তিনি। ২ বাউন্ডারিতে ১৩ রান করেই আউট কিউদের বড় তারকা।

ওই একই ওভারে ফিরেন সদ্য ক্রিজে আসা টম ব্লান্ডেলকে ফেরান মিরাজ। এলবিডব্লিউর ফাঁদে ফেলে তুলে নেন নিজের তৃতীয় উইকেট। ডাক মেরেই ড্রেসিং রুমের পথ ধরেন ব্লান্ডেল। এরপর ১৩তম ওভার চলাকালীন আলোক স্বল্পতার কারণে খেলা বন্ধ করে দেন আম্পায়াররা। দিনের খেলাও সমাপ্ত করে দেন পরবর্তীতে।

খেলা বন্ধ হওয়ার আগ পর্যন্ত নিউজিল্যান্ডের সবশেষ সংগ্রহ ১২.৪ ওভারে ৫ উইকেট হারিয়ে ৫৫ রান। ড্যারিল মিচেল ১২ রানে অপরাজিত, তার সাথে গ্লেন ফিলিপস ৫ রানে অপরাজিত। বৃহস্পতিবার দ্বিতীয় দিনে এখান থেকেই খেলা শুরু হবে আবারও।

এর আগে দিনের শুরুতে টস জিতে ব্যাট করতে নেমে দিনের তৃতীয় সেশনে অলআউট হওয়ার আগে ১৭২ রান করতে পারে বাংলাদেশ।

দিনের শুরুতে অহেতুক শটে উইকেট বিলিয়ে দেন ওপেনার জাকির হাসান। মিচেল স্যান্টনারের গতি কমিয়ে কিছুটা টেনে করা ডেলিভারি ক্রিজ ছেড়ে বেরিয়ে খেলার চেষ্টা করেন তিনি। বল তার ব্যাটের ওপরের কানায় লেগে উঠে যায় আকাশে। মিড অনে সহজ ক্যাচ নেন কেন উইলিয়ামসন। ২৪ বলে ৮ রান করে ফিরেন বাঁহাতি এই ব্যাটার।

মাহমুদুল হাসান জয়কে ফেরান অ্যাজাজ পাটেল। পরপর দুই ওভারে দুই ওপেনারকে হারিয়ে বিপদে পড়ে বাংলাদেশ। কিউই স্পিনার অ্যাজাজের স্টাম্পের ওপর ডেলিভারি অনেকটা রক্ষণাত্মক ভঙ্গিতে খেলার চেষ্টা করেন জয়। কিন্তু পরাস্ত হন তিনি। ব্যাটের ভেতরের কানা ছুঁয়ে বল যায় শর্ট লেগে, সেখানে কোনো ভুল করেননি টম ল্যাথাম। ২ চারে ৪০ বলে ১৪ রান করেছেন জয়।

পানি বিরতির পরই ড্রেসিং রুমের পথ ধরেন মুমিনুল হক। পঞ্চাশের আগে ৩ উইকেট হারিয়ে চাপে বাংলাদেশ। পাটেলের অফ স্টাম্পের বাইরে পিচ করা ডেলিভারি পেছনের পায়ে কাট করার চেষ্টা করেন মুমিনুল। কিন্তু নিখুঁত টার্নে ভেতরে ঢুকে যাওয়া বলে কাট করার মতো জায়গা পাননি তিনি। ব্যাটের নিচের কানায় লেগে বল জমা পড়ে উইকেটরক্ষকের গ্লাভসে। ৫ রান করেন মুমিনুল।

এরপর দলের বিপদ আরও বাড়িয়ে ফিরেন অধিনায়ক শান্ত। স্যান্টনারের বলে রিভার্স সুইপ খেলার চেষ্টায় এলবিডব্লিউ হন তিনি। পঞ্চাশের আগে ৪ উইকেট হারিয়ে বিপদে পড়ে স্বাগতিকরা। অফ স্টাম্পের বাইরে পিচ করে ভেতরে ঢোকা ডেলিভারিতে রিভার্স সুইপ করলেও ব্যাটে লাগাতে পারেননি শান্ত। প্যাডে লাগতেই জোরাল আবেদন নিউজিল্যান্ডের ফিল্ডারদের। তাতে সাড়া দেননি আম্পায়ার। ৯ রান করে ফিরেছেন শান্ত।

দ্রুত ৪ উইকেট হারিয়ে বিপাকে পড়া বাংলাদেশকে ৫০ রানের জুটি এনে দেন মুশফিকুর রহিম-শাহাদাত হোসেন দিপু জুটি। কিন্তু ব্যক্তিগত ৩৫ রানে কাইল জেমিসনের বল ডিফেন্ড করার পর হাত দিয়ে ধরতে গিয়ে অবস্ট্রাক্টিং দ্যা ফিল্ড হয়ে আউট হন মুশফিক। ৮৩ বলে ৩৫ রান করে সাজঘরে ফেরেন অভিজ্ঞ এই ক্রিকেটার। দলীয় ১০৪ রানে মুশফিকের বিদায়ের পর মেহেদি হাসান মিরাজকে নিয়ে স্কোরবোর্ডে রান যোগ করতে থাকেন দিপু। তবে মন্থর ব্যাটিং চালিয়ে গেলেও গ্লেন ফিলিপ্সের ঘুর্নিতে সাজঘরে ফেরেন তিনি।

১০২ বলে ৩১ রান করে ফেরেন তরুণ ব্যাটার দিপু। নুরুল হাসান সিলেট টেস্টের মতো আজও উইকেট বিলিয়ে দেন। তাঁকে বিদায় করেন ফিলিপ্স। এরপর উইকেটে লড়াই চালিয়ে যাওয়া মেহেদি হাসান মিরাজকেও দলীয় ১৫০’র আগে ফিরিয়ে দেন স্যান্টনার। ২০ রানে বিদায় নেন তিনি। শেষ পর্যন্ত ৮ উইকেট হারিয়ে ১৪৯ রান নিয়ে চা বিরতিতে যায় বাংলাদেশ। চা বিরতি থেকে ফিরে খুব বেশিক্ষণ টেকেনি টাইগারদের ইনিংস। শেষ পর্যন্ত বাংলাদেশ অল আউট হয়ে ১৭২ রানে।

নিউজিল্যান্ডের হয়ে ৩টি করে উইকেট নেন মিচেল স্যান্টনার ও গ্লেন ফিলিপস। অ্যাজাজ পাটেল নেন ২ উইকেট। টিম সাউদি নেন ১ উইকেট।

এসএনপিস্পোর্টসটোয়েন্টিফোরডটকম/নিপ্র/সা

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here