‘রানতো পেয়েছি, এবার যদি বিপিএলে সুযোগ পাই’

ধারাবাহিক ব্যাটসম্যানের তকমা গায়ে লাগানোর জন্য ব্যাক টু ব্যাক ম্যাচে যেমন রান পেতে হয়, তেমনি করে ব্যাক টু ব্যাক মৌসুমে রানের ফুলঝুড়ি ছোটাতে হয়। ভিতর থেকে অনুভব করা এই প্রত্যয় আরো তেজস্বী করে তোলে ইমতিয়াজ হোসেন তান্নাকে। লিগ শুরুর পূর্বে যখন আশা প্রত্যাশা নিয়ে এসএনপিস্পোর্টসের মুখোমুখি হয়েছিলেন তখন জানিয়ে ছিলেন সেরা রান সংগ্রাহকদের একজন হতে চান। মৌসুম শেষে সেই প্রতাশা যথার্থই পূরণ হয়েছে তান্নার।

লিগের সর্বোচ্চ রান সংগ্রাহকের তালিকায় অনেক তারকারই উপরে আছেন তিনি। হয়েছেন তৃতীয় সেরা ব্যাটসম্যান। দোলেশ্বরের হয়ে এ আসরে ১৬ ম্যাচ খেলে ৬৪১ রান করেছেন তান্না।  ২ শতক ও ১ অর্ধশতক করা তান্নার সর্বোচ্চ ইনিংস ১২৮ রানের। প্রিমিয়ার লিগে দারুণ মৌসুম কাটানো তান্না মুখোমুখি হয়েছিলেন এসএনপিস্পোর্টসের । আলাপচারিতার চুম্বক অংশ পাঠকদের জন্য তুলে ধরছেন শামছুল হক মিলাদ-

এসএনপিস্পোর্টস‍: অভিনন্দন, প্রিমিয়ার লিগে দারুণ সময় কাটালেন ব্যাট হাতে। কেমন লাগছে?

ইমতিয়াজ হোসেন তান্না: আলহামদুলিল্লাহ। ধন্যবাদ, আল্লাহর রহমতে নিজের স্বপ্নের মতো করে আরেকটা বছর পার করলাম। নিজের ভিতরে যে জেদ ছিল রান না করলে এখানে টিকে থাকা যাবে না, সেই জেদটা চেপে ধরে ভালোই রান করেছি আল্লাহর রহমতে। অনেক ভালো লাগছে।

এসএনপিস্পোর্টস‍: এই জেদটা হঠাৎ করে চেপে বসলো কোন কারণে?

ইমতিয়াজ হোসেন তান্না: আসলে সত্য কথা হচ্ছে এখনো প্রতিযোগীতাটা অনেক বেশি। রান না করলে এখন কেউ মনেই রাখে না। গত মৌসুমে ভালো করার পর এই মৌসুমে রানের জন্য ক্ষুধার্ত ছিলাম। আল্লাহর রহমতে সফল হয়েছি।

এসএনপিস্পোর্টস‍: সেই ২০০১-২০০২ সালে লিস্ট ‘এ’তে অভিষেকের এতো বছর পর এসে সেরা একটি ইনিংস খেললেন ১২৮ শেখ জামালের বিপক্ষে। কেমন মূল্যায়ন করবেন?

ইমতিয়াজ হোসেন তান্না: আসলে এই ইনিংসটা আমাকে অনেক সাহায্য করেছে নিজের ভিতরে আত্নবিশ্বাস যোগাতে। এই ইনিংসের পর আমি আরো চারটি ইনিংস খেলি, যার সবকটি রান ছিল, যদিও একটিতে দুই অঙ্কের কোটা পেরোতে পারিনি। আরেক ম্যাচে ফতুল্লায় ৪৮ রান করে ক্লান্ত হয়েই আউট হয়ে যাই আমি তখন অসুস্থ ছিলাম। তবু ১২৮ রানের ইনিংস আমাকে সেরা রান সংগ্রাহকের দৌড়ের রেখেছিল। অবশেষে আমি তিন নম্বরে থেকে শেষ করতে পেরেছি।

এসএনপিস্পোর্টস‍: লিস্ট ‘এ’ ক্যারিয়ারের এই ইনিংসটাই কি আপনার খেলা সেরা ইনিংস মনে হয়?

ইমতিয়াজ হোসেন তান্না: না, না। এটা সেরা ইনিংস আমি বলবো না। গত মৌসুমে ব্রাদার্সের বিপক্ষে বর্তমান দল(প্রাইম দোলেশ্বরের) হয়ে ১০০ রানের একটি ইনিংস খেলে দলকে জিতিয়েছিলাম। সেটাকেই আসলে সেরা ইনিংস বলবো।

এসএনপিস্পোর্টস‍: এই মৌসুমে দুটি সেঞ্চুরি করেছেন ১২৮ ও ১০৭ কোন ইনিংসটা এগিয়ে রাখবেন?

ইমতিয়াজ হোসেন তান্না: আসলে আমার ভাগ্য খারাপ। এই মৌসুমে সবচেয়ে বেশি সেঞ্চুরির মালিক থাকতাম আমি। তিনটি সেঞ্চুরি, কিন্তু খারাপ ভাগ্য বলতে হবে এক ম্যাচে নার্ভাস নাইনটিন(৯৯) রান করে আউট হয়েছি। এই দুই ইনিংসের মধ্যে ১২৮ যেহেতু সর্বোচ্চ তাই এটাই এগিয়ে রাখবো। হাহাহা….(হাসি)।

এসএনপিস্পোর্টস‍: এবারের লিগে উইকেট গুলো কেমন ছিলো? ব্যাটসম্যানদের অনুকূলে নাকি বোলারদের?

ইমতিয়াজ হোসেন তান্না: উইকেট ভালো ছিল, বেশির ভাগই ব্যাটসম্যানদের অনুকূলে। ফতুল্লায় তিন চারটা ম্যাচ ছাড়া আমার কাছে সবগুলোই ব্যাটিং বান্ধব মনে হয়েছে।

এসএনপিস্পোর্টস‍: র্দীঘ দিন ধরে জাতীয় পর্যায়ে ক্রিকেট খেলছেন এই দীর্ঘ সময়ে সেরা পার্টনার হিসেবে কাকে রাখবেন?

ইমতিয়াজ হোসেন তান্না: এই মৌসুমে মজিদের সাথে ব্যাট করেছি, শাহরিয়ার নাফিস ছিলো। এরা ভালো পার্টনার। তবে সবচেয়ে বেশি রসায়নটা জমেছিল, অনেক আগে ২০০৭ সালে যখন মোহামেডানে খেলি। লিস্ট ‘এ’ মর্যাদা তখনো ডিপিএল পায় নি। ঐ মৌসুমে জুনায়েদ সিদ্দীকির সঙ্গে দারুণ উপভোগ করেছি ব্যাটিং। দুই জনেই রান পেয়েছিলাম অনেক। ঐ মৌসুমে ভালো খেলেই পরবর্তী বছর জুনায়েদ জাতীয় দলে প্রবেশ করে।

এসএনপিস্পোর্টস‍: টি-২০ ক্রিকেট আপনার খুব একটা খেলা হয় না। আসছে বিপিএল মৌসুমে আপনার নিজ শহরের দল আছে। কতটুকু আশাবাদী খেলার ব্যাপারে?

ইমতিয়াজ হোসেন তান্না: দেখুন সবাই চায়, বড় আসরে খেলতে কিন্তু আমার দুর্ভাগ্য ২০১২ সালে সিলেট সুপারর্স্টাসের হয়ে একটি ম্যাচ খেলেছিলাম। এরপর আর বিপিএলে সুযোগ পাই নি। গত বছর ডিপিএলে পারফর্ম করে বিপিএলে উপেক্ষিতই থেকেছি। এই মৌসুমে নিজ শহরের দল অংশগ্রহণ করবে তাই একটু বেশিই আশাবাদী। তবে অন্য দল থেকে প্রস্তাব পেলে খেলবো। আশা রাখছি যেহেতু এবার ধারাবাহিক রান করেছি।

এসএনপিস্পোর্টস‍: লিস্ট ‘এ’ নাকি চারদিনের ম্যাচ কোনটা বেশি উপভোগ করেন?

ইমতিয়াজ হোসেন তান্না: কঠিন প্রশ্ন? যেহেতু ৪ দিনের ম্যাচে নিজেকে প্রমাণ করার সময় বেশি পাওয়া যায় তাই ৪ দিনের ম্যাচকেই এগিয়ে রাখবো। তবে একদিনের ম্যাচ উপভোগ করি।

এসএনপিস্পোর্টস‍: শেষ প্রশ্ন এইচ পি স্কোয়াড হচ্ছে, কতটুকু বিশ্বাস রাখেন নিজেকে এখানে দেখবেন বলে?

ইমতিয়াজ হোসেন তান্না: ইনশাআল্লাহ। পূর্ণ বিশ্বাস রাখছি নিজের উপর, দুই মৌসুম ধারাবাহিক রান করায় আশাতো রাখতেই পারি। বাকিটা নির্বাচকদের হাতে।

এসএনপিস্পোর্টসটোয়েন্টিফোরডটকম/নিপ্র/০০