শেষ হয়ে গেছে মেয়াদ, তবুও নির্বাচকের দায়িত্বে আছেন নান্নু-বাশার

স্পোর্টস ডেস্ক:: শুরু করে ছিলেন সেই ২০১১ সালে। এখনো চলছে। এক দশকেরও বেশি সময় থেকে জাতীয় দল নির্বাচকের দায়িত্বে আছেন মিনহাজুল আবেদীন নান্নু। হাবিবুল বাশার সুমনও আছে দীর্ঘ দিন থেকে। তাদের নির্বাচক হিসেবে দায়িত্ব পালনের মেয়াদ ফুরিয়েছে গত বছরই।

বিদায়ী বছরের ডিসেম্বরে নির্বাচকের দায়িত্বের মেয়াদ শেষ হয়ে গেলেও তারা এখনো আছেন নির্বাচকের দায়িত্ব। বিসিবি আপাতত তাদেরকে আরো কিছু দিন দায়িত্ব চালিয়ে যেতে মৌখিক ভাবে বলেছে। সে অনুযায়ী এখনো জাতীয় দল নির্বাচনের দায়িত্বে আছেন সুমন।

২০১১ সালে আকরাম খানের নেতৃত্বাধীন নির্বাচক প্যানেলে সদস্য হিসেবে যাত্রা শুরু করেন নান্নু। ২০১৬ সালে এসে পান প্রধান নির্বাচকের দায়িত্ব। তার সঙ্গে দীর্ঘ দিন থেকে আছেন আরেক সাবেক অধিনায়ক হাবিবুল বাশার সুমনও। গত বছরেই তাদের দুই জনের সঙ্গে নির্বাচক প্যানেলে যুক্ত হন আরেক সাবেক ক্রিকেটার আব্দুর রাজ্জাক।

দল নির্বাচন নিয়ে সম্প্রতি বেশ আলোচনায় আছেন নান্নু-সুমনরা। বিশেষ করে সাম্প্রতিক দলের পারফর্ম বেশ হতাশা জনক। ওয়ানডে ফরম্যাটে মোটামুটি মানের পারফর্ম হলেও আহামরি নয়। টেস্ট আর টি-২০ ফরম্যাটে ব্যর্থতার ভরাডুবি। দল নির্বাচন নিয়ে তাই বেশ জঠীলতায় আছেন নান্নু।

বিশেষ করে মাঝে মধ্যে বির্তকিত সিদ্ধান্ত নিয়ে বসেন নান্নুর নেতৃত্বাধীন নির্বাচক প্যানেল। কোনো ক্রিকেটারকে দীর্ঘ বছর খানেক দলের সঙ্গে রাখেন, কিন্তুু অভিষেক আর হয়নি। কাউকে আবার এক সিরিজে দলে ডেকে নিয়ে, ম্যাচ না খেলিয়েই বাদ দেন জাতীয় দলের স্কোয়াড থেকে। বিশ্বকাপের মাঝপথে বিশ্বকাপ দল থেকে দেশে ফেরত পাঠান ক্রিকেটারদের। সেই সঙ্গে এক টেস্টের স্কোয়াডে নেন কুঁড়ি জনের মতো ক্রিকেটার।

দলের হতশ্রী পারফর্মের সঙ্গে ‘বিতর্কিত’ সিদ্ধান্তে বেশ কয়েক মাস থেকে আলোচনায় আছেন মিনহাজুল আবেদীন নান্নু ও হাবিবুল বাশার সুমন। তাদেরকে দায়িত্ব থেকে সরিয়ে দেওয়ার দাবিও উঠছে মাঝে মধ্যে। কিন্তুু বিসিবি এই দুই সাবেক ক্রিকেটারের উপরেই আস্থা রেখেছে জাতীয় দল নির্বাচনে।

তবে জানা গেছে, আগামি কয়েক দিনের মধ্যে নির্বাচকদের ভবিষ্যত নির্ধারণ হবে। বোর্ড সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন আছেন দেশের বাইরে। তিনি আসলেই ক্রিকেট অপারেশন্স বিভাগ নির্বাচক প্যানেল নিয়ে বসবে বোর্ড সভাপতির সঙ্গে। ততোদিন পর্যন্ত দায়িত্ব পালন করেই যাবেন মিনহাজুল আবেদীনরা।

বিসিবি পরিচালক ও ক্রিকেট অপারেশন্স বিভাগের চেয়ারম্যান মোহাম্মদ জালাল ইউনুস সাংবাদিকদের বলেন ‘যেহেত একটা সিরিজ চলমান আছে, বোর্ড সভাপতিও দেশের বাইরে আছেন, আমরা ইতিমধ্যে কথাবার্তঅ বলেচি। গত ডিসেম্বরে নির্বাচকদের চুক্তি শেষ হয়ে গেছে। সিরিজ চলমান থাকায় তারা এখনো কাজ করে যাচ্ছে, এর মধ্যে যাতে কোনো সমস্যার সৃষ্টি না হয় সেজন্য টেম্পোরালি তাদের কয়েকটা দিন কাজ চালিয়ে যেতে বলা হয়েছে।’

এসএনপিস্পোর্টসটোয়েন্টিফোরডটকম/নিপ্র/ডেস্ক/০০