সাকিবের অধিনায়কত্বের প্রশংসায় পাপন-সুজন

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্সের কাছে মাত্র ১ রানে হেরে বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগের (বিপিএল) শিরোপা হাতছাড়া হয়েছে ফরচুন বরিশালের। অথচ প্রথমবারের মতো শিরোপা জেতার সব ধরনের উপকরণই ছিল দলটির। নিশ্চিত জয় লোয়ার এবং মিডল অর্ডারের ব্যাটারদের ব্যর্থতার কারণে মিস হয়েছে ফ্র্যাঞ্চাইজিটির।

যার জন্য রানার্সআপেই সন্তুষ্ট থাকতে হয়েছে বরিশালকে। এর আগে ম্যাচে কুমিল্লা যেভাবে শুরু করেছিল, সেখান থেকে বেশ ভালোভাবে ঘুরে দাঁড়িয়েছিল দলটি। সাকিবের অধিনায়কত্বকেই যেখানে বড় কৃতিত্ব দিতে হয়। দুর্দান্ত শুরুর পরও কুমিল্লাকে অল্পতেই আটকে রাখে বরিশাল। বোলারদের নৈপুণ্যে সেটা সম্ভব হলেও, সাকিবের নেতৃত্বকে কৃতিত্ব দিতে হবে নিশ্চিতভাবেই।

শুধুমাত্র এই ম্যাচেই নয়। পুরো আসরজুড়েই দুর্দান্ত অধিনায়কত্ব দেখিয়েছেন সাকিব। টুর্নামেন্টজুড়ে বরিশালের ব্যাটিং ব্যর্থতার মাঝেও, বোলিং লাইনআপের পারফর্মেন্স নিয়ে শীর্ষে থেকে ফাইনালে তুলেছিলেন দলকে। মাঝে মুনিম শাহরিয়ার এসে যোগ দিয়ে ব্যাটিংয়ের ব্যর্থতার কিছুটা গুছিয়েছিলেন। ব্যাট হাতে নিজেও দলের হাল ধরেছেন তিনি।

সব মিলিয়ে পুরো আসরে ব্যাটে-বলেও পারফর্ম করেছেন। বরিশালের পক্ষে সর্বোচ্চ ২৮৪ রান করেছেন ব্যাট হাতে। হয়েছেন টুর্নামেন্টের ষষ্ঠ সর্বোচ্চ রান সংগ্রাহক। এছাড়া বল হাতে ১৬ উইকেট নিয়ে টুর্নামেন্টের তৃতীয় সর্বোচ্চ উইকেট শিকারি হয়েছেন। অলরাউন্ডিং নৈপুণ্য দেখিয়ে বিপিএলে চতুর্থবারের মতো টুর্নামেন্ট সেরা নির্বাচিত হয়েছেন।

তবে সব ছাপিয়ে সাকিব আলাদাভাবে নজর কেড়েছেন অধিনায়কত্ব দিয়ে। যা দেখে মুগ্ধ খোদ বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের (বিসিবি) সভাপতি নাজমুল হাসান পাপনও। এছাড়া নতুন করে মুগ্ধ হয়েছেন বরিশালের কোচ খালেদ মাহমুদ সুজনও। বিসিবির এই দুই কর্তার মুখেই ঝরেছে সাকিবের অধিনায়কত্বের প্রশংসা।

এই প্রসঙ্গে পাপন বলেন, ‘বরিশাল যতটা শক্তিশালী দল, এর চেয়েও ভালো করেছে। বরিশালের সাফল্যের জন্য সবচেয়ে বড় কারণ সাকিবের অধিনায়কত্ব। অবিশ্বাস্য ছিল, অসাধারণ অধিনায়কত্ব।’

এদিকে সুজন বলেন, ‘এই টুর্নামেন্টে খুব কাছ থেকে দেখেছি, আমি জানি বরিশালে যেভাবে ও নেতৃত্ব দিয়েছে… মানে ১৪১-১৪৫ রানে আটকে দেওয়া এত সহজ কাজ নয়। আমরা সাতটা ম্যাচ টানা জিতেছি। এছাড়া আমরা একটা ম্যাচে প্রায় দুইশ (১৯৯) রান ডিফেন্ড করতে গিয়েও হারতে বসেছিলাম। কিন্তু ওই সময় শান্তকে এনে একটা ওভার বল করিয়ে এনে ম্যাচ ঘুরিয়ে দিয়েছে। এটা কয়টা অধিনায়ক সাহস করতে পারবে এরকম, শান্তকে বোলিং করানোর। সুতরাং এটাই, গেম প্ল্যানিং কোন সময় কাজে লাগাতে হয়, সাকিব সেটা ভালো জানে। আমি মনে করি… হি ইজ অ্যা ক্লাস।’

এসএনপিস্পোর্টসটোয়েন্টিফোরডটকম/নিপ্র/সা