সাকিবের আইপিএল খেলার লভ্যাংশ পাবে বিসিবিও!

নিজস্ব প্রতিবেদকঃঃ দিনে দিনে ফ্র‍্যাঞ্চাইজি ক্রিকেটে সয়লাব হয়ে যাচ্ছে ক্রিকেটাঙ্গন। অর্থের ঝনঝনানি দেয়া এসব লিগে ক্রিকেটারদেরও রয়েছে ঝোঁক। এমনকি কেউ কেউ দেশের হয়ে খেলার চেয়েও বেশি প্রাধান্য দেন এসব লিগে খেলাকে। উইন্ডিজের ক্রিকেটাররাই এর সবচে বড় ও উৎকৃষ্ট উদাহরণ। অবশ্য প্রাধান্যতার এ বিষয় সব ধরনের লিগের জন্য যে তা কিন্ত নয়। বিশেষ করে তা বিশ্বের সেরা লিগ ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লিগের জন্যেই। তো ক্রিকেটারদের আইপিএলে খেলতে দিলে সে ক্রিকেটারের বোর্ডের এতে কি কোন লাভ আছে? প্রত্যক্ষ লাভটা আইপিএলে খেলোয়াড়দের বেতন কাঠামোর একটা অংশ খেয়াল করলেই খুঁজে পাওয়া যায়।

আইপিএলের নিলামে কোন খেলোয়াড়কে যত টাকায় কেনা হয়, তাই ঐ খেলোয়াড়ের বেতন এবং তিনি এক মৌসুমে উপস্থিতির জন্যই তা পাবেন। টাইমস অব ইন্ডিয়ার তথ্যমতে কোন খেলোয়াড়ের যত বেতন হয় তার ২০ শতাংশ বিসিসিআই (দ্য বোর্ড অফ কন্ট্রোল ফর ক্রিকেট ইন ইন্ডিয়া) ওই খেলোয়াড়ের বোর্ডকে প্রদান করে। তবে সেটা ওই খেলোয়াড়ের বেতন থেকে কেটে নয়, বিসিসিআইয়ের আইপিএল কেন্দ্রীয় রাজস্ব পুল থেকেই তা দেয়া হয় সংশ্লিষ্ট বোর্ডকে। আর খেলোয়াড় তাঁর বেতনের পুরো টাকাটাই পান। ধরুন, ইংল্যান্ডের একজন ক্রিকেটার বিক্রি হলেন ১০ কোটি টাকায়, তো আইপিএলে যদি সে ক্রিকেটার উপস্থিত থাকেন তাহলে ইংল্যান্ড ক্রিকেট বোর্ড পাবে এর ২০ শতাংশ অর্থাৎ ২ কোটি টাকা।

সাকিব আল হাসানকে কলকাতা নাইট রাইডার্স ২০২১ সালের আইপিএলের নিলামে প্রায় ৩ কোটি ৭৪ লাখ টাকায় কিনেছে। শ্রীলঙ্কার বিরুদ্ধে দুই টেস্টের সিরিজে ছুটি নিয়ে সাকিব যাবে আইপিএলে খেলতে। তো এতে বিসিবির কি লাভ? বিসিবি পাবে এর ২০ শতাংশ পরিমাণ টাকা। তার মানে বিসিবির কোষাগারে জমা হবে প্রায় ৭৪ লাখ ৮০ হাজার টাকা।

সাকিবের একমাত্র বাংলাদেশী সঙ্গী হিসেবে আইপিএলে যাওয়ার সুযোগ আছে মোস্তাফিজুর রহমানের। তবে মোস্তাফিজ আইপিএল খেলতে যাবেন কি না সে সিদ্ধান্ত বিসিবি ছেড়ে দিয়েছিল মোস্তাফিজেরই উপর। এবং মোস্তাফিজ বলেছেন তাঁর কাছে আগে দেশ, পরে আইপিএল। যদি দেশের খেলার পরে বা দেশের দায়িত্ব থাকে না এমন সময়ে আইপিএলে খেলার সুযোগ থাকে তখনই বিসিবির অনুমতি পেলে তিনি যাবেন আইপিএলে। চতুর্দশ আইপিএলের আগে নিলামে মোস্তাফিজকে রাজস্থান রয়্যালস কিনেছে তারঁ ভিত্তিমুল্য ১ কোটি ১৭ লাখ টাকায়। যদি মোস্তাফিজ আইপিএলে খেলতে যান তাহলে সেখানেও আছে বিসিবির লাভ। বাঁহাতি এ পেসারের আইপিএলে খেলার বিনিময়ে বিসিসিআইয়ের থেকে বিসিবির কোষাগারে জমা হবে প্রায় ২৩ লাখ ৪০ হাজার টাকা। মোস্তাফিজের আইপিএলে যাওয়া-না যাওয়া বলে দিবে সময়ই। এবার না-হয় আবার ফিরা যাক সাকিবেই।

বিসিবি সাকিবকে ছুটি দিল। ব্যাপারটা এমন হয়ে দাড়াল যে- সাপও মরল, লাঠিও ভাঙ্গলো না। সাকিবের পছন্দের ফরম্যাটের তালিকায় সবশেষেই আছে টেস্ট। সে টেস্ট না খেলে আইপিএলে খেলতে পারলে সাকিব অবশ্যই তাই খুশি হবেন। এদিকে বিসিবিও এতে কিছুটা আর্থিক দিক দিয়ে লাভবান হলো। তবে শুধুই যে আর্থিক দিকের কারণেই বিসিবি সাকিবকে দেশের বদলে আইপিএলে খেলার অনুমতি দিয়ে দিবে, সেটাও ধারণা করা যায় কি? আসল কারণ কি আমরা কেউই জানিনা। আমরা যেটা করতে পারি, সেটা হচ্ছে শুধুই অনুমান। আর কিছু প্রশ্ন, যেসবের উত্তর আদৌ পাবো কিনা তাঁরও উত্তর জানিনা।

বিসিবি সভাপতিও জানিয়ে দিয়েছেন যে চাইবে সেই খেলতে পারবে ফ্র‍্যাঞ্চাইজি ক্রিকেট, দেশের খেলা থাকলেও। এতে বিসিবি আর্থিক দিয়ে কিছুটা লাভবান হলেও ক্ষতিটা যে হবে আমাদের ক্রিকেটেরই!