সিলেটের মাসুক-মতিনকে জাতীয় দলের ক্যাম্পে যোগদানের অনুমতি দেয়নি বসুন্ধরা

বিশেষ প্রতিবেদনঃ প্রতিক্ষার অবসান ঘটিয়ে আগামিকাল ৫ আগস্ট থেকে শুরু হচ্ছে বাংলাদেশ জাতীয় ফুটবল দলের ক্যাম্পের প্রক্রিয়া। কোভিড-১৯ পরীক্ষা করিয়ে গাজীপুরের একটি রিসোর্টে তিন ধাপে ফুটবলারদের ক্যাম্পে উঠাবে বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশন (বাফুফে)। প্রথম দুই ধাপে ১২ জন করে এবং শেষ ধাপে ৭ ফুটবলারকে ক্যাম্পে তোলা হবে।

আফগানিস্তানের বিপক্ষে বিশ্বকাপ ও এশিয়া কাপ বাছাইয়ের ম্যাচের জন্য প্রাথমিক দলে ডাক পাওয়া সর্বমোট ৩৬ ফুটবলারকে নিয়ে ক্যাম্প শুরু হওয়ার কথা ছিল। তবে সেটি পরিপূর্ণ হচ্ছে না আপাতত। ক্যাম্পের জন্য ৩১ ফুটবলারকে পাচ্ছে বাফুফে।

এর মধ্যে জাতীয় দলের অধিনায়ক জামাল ভূঁইয়া ও প্রথমবারের মতো প্রাথমিক দলে সুযোগ পাওয়া ফিনল্যান্ড প্রবাসী তারিক রায়হান কাজী নির্ধারিত সময়ে যোগ দিতে পারছেন না ক্যাম্পে। জামাল ডেনমার্ক ও তারিক ফিনল্যান্ডে অবস্থান করছেন। করোনা ভাইরাসের কারণে সেইসব দেশের বিমান ও ভ্রমণ নিয়ে কড়াকড়ি হওয়ায় আপাতত ক্যাম্পে যোগ দিতে পারছেন না তাঁরা। কবে যোগ দিবেন সেটিও এখন পর্যন্ত নিশ্চিত করে বলা যাচ্ছে না।

এদিকে দেশে অবস্থান করেও ক্যাম্পে যোগদান করতে পারবেন না তিন ফুটবলার মতিন মিয়া, মাসুক মিয়া জনি ও আতিকুর রহমান ফাহাদ। এই তিনজনকে ক্যাম্পে যোগদানের অনুমতি প্রদান করেনি বসুন্ধরা কিংস। তিনজনই ইনজুরি কাটিয়ে উঠেছেন।

বসুন্ধরা কর্তৃপক্ষ বাফুফেকে চিঠির মাধ্যমে জানিয়েছিল ইনজুরি থেকে সেরে উঠা ফুটবলারদের নিয়ে নিজেরাই ক্যাম্প আয়োজন করবে আগস্টের মাঝামাঝিতে। কারণ, এএফসি কাপের জন্য সেপ্টেম্বরে পুরোদমে ক্যাম্প শুরুর আগে এদেরকে ভালোভাবে তৈরি করতে চায় কিংসরা। এই তিন ফুটবলারকে অনুমতি না দিলেও, ক্যাম্পের জন্য ডাক পাওয়া আরও ১১ ফুটবলারকে অনুমতি দিয়েছে বসুন্ধরা।

এছাড়া ইংল্যান্ডে অবস্থানরত জাতীয় দলের কোচ জেমি ডে সহ কোচিং স্টাফের অন্যান্য সদস্যদের আসার তারিখ এখনও নির্ধারন হয়নি। তবে খুব শীগ্রই ক্যাম্পে যোগদান করবেন বলে বাফুফের দায়িত্বশীল সূত্র নিশ্চিত করেছে এসএনপিস্পোর্টসকে।

এসএনপিস্পোর্টসটোয়েন্টিফোরডটকম/নিপ্র/ডেস্ক/সা