সৌম্যের ঝড়ো ইনিংসে চট্টগ্রামের বড় জয়

নিজস্ব প্রতিবেদক:: বঙ্গবন্ধু টি-২০ কাপে গাজী গ্রুপ চট্টগ্রামের কাছে পাত্তাই পেলো না বেক্সিমেকো ঢাকা। বল হাতে মোসাদ্দেক-মুস্তাফিজদের ক্রীড়া নৈপুণ্যৈর পর ব্যাট হাতে সৌম্য সরকারের ঝড়ো ইনিংসে ৯ উইকেটের বড় ব্যবধানে জিতেছে চট্টগ্রাম।

আগে ব্যাট করে মাত্র ৮৮ রানেই গুটিয়ে যায় ঢাকা। জবাবে ব্যাট করতে নামা চট্টগ্রাম মাত্র এক উইকেট হারিয়ে বড় জয় নিয়ে মাঠ ছাড়ে।

৮৯ রানের টার্গেটে খেলতে নামা চট্টগ্রামের দুই ওপেনার লিটন দাস ও সৌম্য সরকারই তুলে নেন ৭৯ রান। ইনিংসের দশম ওভারের চতর্থ বলে নাসুমের শিকারে লিটন দাস ব্যক্তিগত ৩৩ বলে ৩৪ রানে ফিরে যান সাজঘরে।

লিটনের বিদায়ের পর আরেক ওপেনার সৌম্য সরকার ২৯ বলে ৪৪ রানের ঝড়ো ইনিংস খেলে থাকেন অপরাজিত। চারটি চার ও দু’টি ছক্কায় সাজান নিজের ইনিংসটি। দুটি চারের সাহায্যে ৩ বলে ৮ রান করে সৌম্যের সঙ্গে অপরাজিত থাকেন মুমিনুল হক।

ঢাকার হয়ে নাসুম একটি মাত্র উইকেট লাভ করেন।

এর আগে ব্যাটসম্যানদের ব্যর্থতায় লজ্জাজনক স্কোর গড়ে বেক্সিমকো ঢাকা। গাজী গ্রুপ চট্টগ্রামের বিপক্ষে মাত্র ৮৮ রানে গুঁটিয়ে গেছে মুশফিকদের দল। অথচ ব্যাট হাতে ঝড় তুলেছিলেন নাঈম শেখ। কিন্তু, সেই ঝড় রুখে দিয়ে মিরপুরে বল হাতে নৈপুণ্য দেখিয়েছেন মুস্তাফিজ-মোসাদ্দেক-শরিফুলরা।

টস হেরে ব্যাট করতে নেমে শুরু থেকেই বিপর্যয়ে পড়ে ঢাকা। দলীয় ৭ রানে তানজিদ তামিমের বিদায়ে ভাঙে উদ্বোধনী জুটি। এরপর নিয়মিত বিরতিতে উইকেট হারাতে থাকে দলটি। টপ অর্ডারে ব্যাট করতে এসে ১০ বল খেলেও কোনো রান নিতে পারেননি সাব্বির। মুশফিক ফেরেন ‘গোল্ডেন ডাকে’।

বাকিদের ব্যর্থতার দিনে আলো ছড়িয়েছেন ওপেনার নাঈম শেখ। ২৩ বলে ৪০ রানের ঝড়ো ইনিংস খেলেন এই বাঁহাতি তরুণ। দলীয় ২১ রানে তিন উইকেট হারানোর পর, আকবর আলির সাথে চতুর্থ উইকেটে ৪৪ রানের জুটি গড়ে ভালো অবস্থানে নিয়ে গিয়েছিলেন দলকে। তবে এই জুটি ভাঙার পরই ধ্বংসস্তুপে পরিণত হয় ঢাকা। ২২ বল আগেই মাত্র ৮৮ রানেই গুঁটিয়ে যায় দলটির ইনিংস।

চট্টগ্রামের হয়ে শরিফুল ইসলাম, তাইজুল ইসলাম, মোসাদ্দেক হোসেন সৈকত ও মুস্তাফিজুর রহমান ২টি করে উইকেট শিকার করেন। ১টি করে উইকেট লাভ করেন নাহিদুল ইসলাম ও সৌম্য সরকার।

এসএনপিস্পোর্টসটোয়েন্টিফোরডটকম/নিপ্র/ডেস্ক/০০