‘বিতর্কিত’ রেফারিংয়ের প্রতিবাদ, হাতাহাতি

0
101

নিজস্ব প্রতিবেদক:: সিলেট প্রিমিয়ার লিগ ফুটবলের ম্যাচটি ছিলো শিরোপা প্রত্যাশী মোহামেডান স্পোটিং ক্লাব ও টিলাগড় ক্লাবের। দুই ক্লাবের ডাগ আউটে ক্লাব অফিসিয়ালরা। টিলাগড় ক্লাবের সমর্থক পলাশ মিয়া। তিনি আবার শিরোপা প্রত্যাশী আরেক ক্লাব সিলেট ইউনাইটেডের ম্যানেজার। টিলাগড়ের বাসিন্দা হওয়ায় টিলাগড় ক্লাবের সমর্থকও তিনি।

সিলেট জেলা স্টেডিয়ামে তাই টিলাগড় ও মোহামেডানের ম্যাচ দেখতে গেলেন পলাশ মিয়া। খেলা চলচিলো তার আপন গতিতেই। ম্যাচের মিনিট  পঁচিশ

পরেই টিলাগড়ের জালে বল পাঠিয়ে দেয় মোহামেডান স্পোটিং ক্লাব। পিছিয়ে পড়া টিলাগড়ের খেলোয়াড়রা দাবি তুলেন- বলটি আগেই টার্চ লাইন অতিক্রম করেছে। গোল বাতিলের দাবি জানান ক্লাবটির ফুটবলার ও অফিসিয়ালরা।

তবে ঢাকা থেকে আসা রেফারি আলমগীর তার সিদ্ধান্তেই থাকলেন। জানিয়ে দিলেন গোল হয়েছে। তাতেই শুরু গোলমাল। টিলাগড় ক্লাবের ম্যানেজার ইমরোজ দেখলেন হলুদ কার্ড। সমর্থক পলাশ মিয়া হারালেন মেজাজ। রেফারি ‘বির্তকিত’ সিদ্ধান্ত মেনে নিতে পারেননি তিনি। মেজাজ হারিয়ে তাই চড়াও হলেন রেফারির উপর।

বাক-বিতণ্ডা এক পর্যায়ে গিয়ে ঠেকলো হাতাহাতিতে। শেষ পর্যন্ত দৌড়ে বাঁচলেন রেফারি। মাঠে প্রবেশ করতে হলো পুলিশকেও। টিলাগড়-মোহামেডানের ম্যাচ তাই পণ্ড হয়ে গেলো। রেফারির উপর চড়াও হওয়ায় বিপাকে পড়েছেন পলাশ মিয়া।

আয়োজকেরা জানিয়েছেন, ক্রীড়া সংস্থা ও লিগ কমিটির কর্মকর্তারা বসে পরবর্তী সিদ্ধান্ত নেবেন ম্যাচ ও অনাকাঙ্খিত এই ঘটনা নিয়ে। তবে লিগ চলবে। লিগ কমিটির সদস্য সিরাজ উদ্দিন এসএনপিস্পোর্টসকে বলেন, ‘মাঠে যা ঘটেছে তা অনাকাঙ্খিত। লিগ সূচি অনুযায়ী চলবে। কর্মকর্তারা বসে অমিমাংসিত ম্যাচটি নিয়ে সিদ্ধান্ত নেবেন।’

টিলাগড় ক্লাবের ম্যানেজার ইমরোজ আহমেদ এসএনপিস্পোর্টসকে বলেন, বলটি টার্চ লাইন অতিক্রম করায় আমাদের ফুটবলাররা থেমে যান। এই সুযোগে প্রতিপক্ষ গোল দিয়ে বসে। আমরা গোলটি নিয়ে আপত্তি জানাই। এসময় একজন সমর্থক মাঠে প্রবেশ করলে অনাকাঙ্খিত ঘটনা ঘটে যায়।’

এসএনপিস্পোর্টসটোয়েন্টিফোরডটকম/নিপ্র/০০

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here