ফাইনালের আগে লঙ্কান নিশাঙ্কার ঝড়ে বিধ্বস্ত পাকিস্তান

0
15

স্পোর্টস ডেস্ক:: এক দিন পরই এশিয়া কাপের ফাইনাল। তার আগে ড্রেস রিহার্সেলে পাকিস্তান-শ্রীলঙ্কার লড়াই হলো। লঙ্কা ঝড়ে যেখানে উড়ে গেলো পাকিস্তান। লঙ্কান বোলারদের তোপের মুখে পড়া পাকিস্তান আটকে যায় অল্পতেই। জবাবে খেলতে নামা লঙ্কানরা তিন ওভার হাতে রেখে বাবর আজমকের দলকে হারিয়ে দেয় ৫ উইকেটের ব্যবধানে।

আগে ব্যাট করা পাকিস্তান দল মাত্র ১২১ রানে গুটিয়ে যায়। ১২২ রানের সহজ লক্ষ্য শ্রীলঙ্কা পেরিয়ে যায় পাথুশ নিশাঙ্কার অপরাজিত ফিফটিতে।

১২২ রানের টার্গেটে ব্যাট করতে নামা লঙ্কানরা প্রথম ওভারের দ্বিতীয় বলে ১ রানের মাথায় প্রথম উইকেট হারানোর পর দ্বিতীয় ওভারের দ্বিতীয় বলে দুই রানের মাথায় হারিয়েছে দুই উইকেট। ইনিংসের দ্বিতীয় বলেই হাসনানই তুলে নেন ওপেনার কুশল মেন্ডিসকে। গোল্ডেন ডাক মারেন লঙ্কান এই ওপেনার।

দ্বিতীয় ওভার করতে আসা হারিস রউফও তুলে নেন আরেকটি উইকেট। তিনিও ওভারের দ্বিতীয় বলে ৪ বলে শুন্য রানে থাকা দানুশ গুনাতিলাকাকে ফিরিয়ে দেন প্যাভেলিয়নে। এরপরই ঘুরে দাঁড়ায় লঙ্কানরা। তৃতীয় উইকেটে ওপেনার পাথুম নিশাঙ্কাকে নিয়ে ডি সিলভা ২৭ রানের জুটি গড়েন। পঞ্চম ওভারের শেষ বলে দলীয় ২৯ রানে বিদায় নেন ধনাঞ্জয়া ডি সিলভাও। ৯ রান করেন তিনি।

নিয়মিত বিরতিতে উইকেট হারাতে থাকলেও এক প্রান্ত আগলে রাখেন পাথুম নিশাঙ্কা। চতুর্থ উইকেটে ভানুকা রাজাপাকসেকে নিয়ে গড়েন দারুণ জুটি। ৩৯ বলে ৫১ রান যোগ করার পর পাজাপাকসের বিদায়ের ভাঙে তাদের জুটি। দলীয় ৮০ রানের মাথায় চতুর্থ উইকেটে ইনিংসের ১২তম ওভারের তৃতীয় বলে সাজঘরে ফিরেন রাজাপাকসে। এরপর পঞ্চম উইকেটে অধিনায়ক দাসুন শানাকাকে নিয়ে ৩০ রান তুলেন নিশাঙ্কা। ১৭তম ওভারের দ্বিতীয় বলে ১১৩ রানের মাথায় পঞ্চম উইকেটে অধিনায়ক শানাকা সাজঘরে ফিরেন ব্যক্তিগত ১৬ বলে ২১ রান। নিশাঙ্কা পাথুম পাঁচ চার ও এক ছক্কায় ৪৮ বলে ৫৫ রান করে অপরাজিত থাকেন। তিন বলে ১০ রানে অপরাজিত থাকেন হাসরাঙ্গা ডি সিলভা।

পাকিস্তানের হয়ে মোহাম্মদ হাসনাইন ও হারিস রউফ ২টি করে উইকেট লাভ করেন।

টস হেরে ব্যাট করতে নামা পাকিস্তান দাসুন শানাকার দলের বোলিং তোপে মাত্র১২১ রানেই গুটিয়ে যায় পাঁচ বল আগেই। শুরু থেকেই বাবর আজমের দলকে চেপে ধরেন লঙ্কান বোলাররা। মোহাম্মদ রিজওয়ান ও বাবর আজমের উদ্বোধনী জুটি বড় হতে দেননি লঙ্কান বোলররা। চতুর্থ ওভারের তৃতীয় বলেই দলীয় ২৮ রানে প্রথম উইকেট হারায় দলটি। ব্যক্তিগত ১৪ রানে ফিরে যান রিজওয়ান।

দ্বিতীয় উইকেটে বাবর আজম ও রিজওয়ান ৩৫ রান যোগ করেন। দলীয় ৬৩ রানে ব্যক্তিগত ১৩ রান করা ফখর জামানের বিদায়ের পর রীতিমতো বিপর্যয়ে পড়ে পাকিস্তান। ১১তম ওভারের চতুর্থ বলে দলীয় ৬৮ রানে তৃতীয় উইকেট হারায় দলটি। হতাশ করে ফিরে যান অধিনায়ক বাবর আজম। দুই চারে ২৯ বলে ৩০ রান করেন পাক অধিনায়ক।

লঙ্কান বোলাররা চেপে ধরেন পাক ব্যাটারদের। ১৪তম ওভারের তৃতীয় বলে চতুর্থ উইকেট হারায় পাকিস্তান। দলীয় ৮২ রানের মাথায় খুশদিল শাহ সাজঘরে ফিরেন ব্যক্তিগত ৪ রানেই। ১৫তম ওভারের পঞ্চম বলেই পঞ্চম উইকেট হারায় পাকিস্তান। ৯১ রানের মাথায় ১৭ বলে ১৩ রান করা ইফতিখার ফিরেন প্যাভেলিয়নে।

১৫তম ওভারের শেষ বলে ৯১ রানের মাথায় আসিফ আলীর বিদায়ে ষষ্ঠ উইকেট হারায় পাকিস্তান। শুন্য রানেই সাজঘরে ফিরেন এই ব্যাটার। পরের ওভারের শেষ বলে সপ্তম উইকেটে হাসান আলী ফিরেন প্যাভেলিয়নে। দলীয় ৯৫ রানের মাথায় ব্যক্তিগত শুন্য রানে তিনি সাজঘরে ফিরেন।

১৮তম ওভারের পঞ্চম বলে শতরান পেরিয়ে অষ্টম উইকেট হারায় পাকিস্তান। ১১০ রানের মাথায় ৬ বলে ৩ রানে প্যাভেলিয়নে ফিরেন। ১৯তম ওভারের পঞ্চম বলে নেওয়াজের বিদায়ে নবম উইকেটের পতন ঘটে পাকিস্তানের। ১৮ বলে ২৬ রানে সাজঘরে ফিরেন নেওয়াজ। ১২১ রানে নবম উইকেট হারানো দলটি ২০তম ওভারের প্রথম বলেই হারায় শেষ ব্যাটার হারিস রউফকে। ২ বলে ১ রান করেন তিনি। পাকিস্তানের ইনিংস থেমে যায় ১২১ রানে।

শ্রীলঙ্কার হয়ে হাসরাঙ্গা ডি সিলভা ৩টি, মধুসন ও থিকসেনা ২টি করে উইকেট লাভ করেন।

এসএনপিস্পোর্টসটোয়েন্টিফোরডটকম/নিপ্র/ডেস্ক/০০

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here