জেসনের সেঞ্চুরির পর বাটলার-মঈনের ঝড়ে ইংল্যান্ডের বিশাল সংগ্রহ

0
160

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ টস হারলেও, ইংল্যান্ড অধিনায়ক জস বাটলার জানিয়েছিলেন তিনি আগে ব্যাটিং চেয়েছিলেন। ঠিক কেন ব্যাট করতে চেয়েছিলেন, সেটা স্পষ্টতই বুঝিয়ে দিলেন দলের ব্যাটাররা। নিজে হাঁকিয়েছেন ঝড়ো ফিফটি। সতীর্থ জেসন রয় খেলেছেন দারুণ এক সেঞ্চুরির ইনিংস। সঙ্গে মঈন আলি ও স্যাম কারানের ক্যামিও।

বাংলাদেশের বিপক্ষে সিরিজের দ্বিতীয় ওয়ানডেতে বিশাল পুঁজি পেয়েছে ইংলিশরা। নির্ধারিত ৫০ ওভারে ৭ উইকেট হারিয়ে ৩২৬ রান সংগ্রহ করেছে সফরকারীরা। টাইগার বোলারদের উপর চড়াও হয়েছিলেন এদিন অতিথি দলের ব্যাটাররা। সিরিজ বাঁচাতে হলে বাংলাদেশকে এখন করতে হবে ৩২৭ রান।

মিরপুরের হোম অব ক্রিকেটে টস হেরে ব্যাট করতে নেমে শুরুতে ধীর-স্থির হিসেবে খেলতে থাকেন ইংল্যান্ড দল। তবে দুই ওপেনার জেসন রয় ও ফিল সল্টের জুটি দলীয় ২৫ রানে ভেঙে যায়। টাইগারদের হয়ে প্রথম ব্রেক থ্রু এনে দেন তাসকিন আহমেদ। ইংলিশ ওপেনার ফিল সল্টকে ফিরিয়েছেন তিনি। ম্যাচের সপ্তম ওভারে এসে ওভারের তৃতীয় বলে সল্টকে স্লিপে ক্যাচ দিতে বাধ্য করেন। নাজমুল হোসেন শান্ত সেই ক্যাচ দারুণভাবে লুফে নিয়েছেন। যার ফলে ১৫ বলে ১ বাউন্ডারিতে ৭ রান করেন প্যাভিলিয়নের পথ ধরেন সল্ট।

দ্বিতীয় উইকেটে জুটি গড়েন ওপেনার জেসন রয় ও টপ অর্ডারে নামা ডেভিড মালান। দুজনে মিলে গড়ে তুলেন ৫৮ রানের জুটি। সেই জুটিতে ভাঙন ধরান মিরাজ। মালানকে এলবিডব্লিউর ফাঁদে ফেলেন এই অফ-স্পিনার। ১৯ বলে ১১ রান করেন এই বাঁহাতি তারকা। এরপর উইকেটে আসা জেমস ভিন্সকেও দ্রুত ফেরান তাইজুল ইসলাম। উইকেটের পেছনে মুশফিকুর রহিমের হাতে ক্যাচ তুলে দেন ভিন্স। দলীয় একশ পূরণের আগে প্যাভিলিয়নে ফেরেন এই ডানহাতি ব্যাটার। ১৬ বলে ৫ রান করেন তিনি।

৯৬ রানে তিন উইকেট হারিয়ে খানিকটা বিপদে পড়ে ইংল্যান্ড দল। তবে জস বাটলার ও জেসন রয়ের ব্যাটে ঘুরে দাঁড়িয়েছে সফরকারীরা। চতুর্থ উইকেটে দুই তারকার ১০৯ রানের জুটিই ইংলিশদের বড় স্কোরের ভিত গড়ে দেয়। সাকিব আল হাসানের বলে এলবিডব্লিউর শিকার হয়ে জেসন ফিরলে ভাঙে সেই জুটি। তবে এর আগে ক্যারিয়ারের ১২তম ওয়ানডে সেঞ্চুরি পূরণ করে নেন। খেলেন ১২৪ বলে ১৮ বাউন্ডারি ও ১ ছক্কায় ১৩২ রানের দুর্দান্ত এক ইনিংস।

উইকেটে এসে টিকতে পারেননি উইল জ্যাকস। তাসকিনের শিকারে পরিণত হওয়ার আগে ৪ বলে মাত্র ১ রান করেন তিনি। এরপর ষষ্ঠ উইকেটে ৫২ রানের ঝড়ো জুটি গড়েন বাটলার ও মঈন আলি। অতি আক্রমণাত্বক হতে গিয়ে মিরাজের শিকারে প্যাভিলিয়নের পথ ধরেন বাটলার। তবে ইংলিশ অধিনায়ক এর আগে ৬৪ বলে ৫ চার ও ২ ছক্কায় ৭৬ রানের ইনিংস খেলেন।

শেষ দিকে মঈন আলির ৩৫ বলে ৩ বাউন্ডারি ও ২ ছয়ে ৪২ রানের ক্যামিও এবং স্যাম কারানের ১৯ বলে ২ চার ও ৩ ছক্কায় ৩৩ রানের অপরাজিত ঝড়ো ইনিংস ভর করেই বিশাল পুঁজি পায় ইংলিশরা। এক বাউন্ডারিতে ৬ রান করে স্যাম কারানের সাথে অপরাজিত থেকে মাঠ ছাড়েন আদিল রশিদ।

বাংলাদেশের হয়ে সব বোলাররাই এদিন বেশ খরুচে ছিলেন। তবে ৩টি উইকেট শিকার করেছেন পেসার তাসকিন আহমেদ। মেহেদী হাসান মিরাজ ২টি উইকেট লাভ করেন। সাকিব ও তাইজুল ১টি করে উইকেট পকেটে পুড়েন।

এসএনপিস্পোর্টসটোয়েন্টিফোরডটকম/নিপ্র/সা

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here